Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ভিনির সমর্থনে ব্রাজিলের সঙ্গে প্রীতি ম্যাচ খেলবে স্পেন

এর মাধ্যমে ১১ বছর পর আন্তর্জাতিক ফুটবলে পরস্পরের মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল

আপডেট : ১৪ জুন ২০২৩, ০৩:৪৭ পিএম

সদ্য সমাপ্ত ২০২২-২৩ মৌসুম লা লিগায় একাধিকবার বর্ণবাদী আচরণের শিকার হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড ভিনিসিয়াস জুনিয়র। ইতোমধ্যে তরুণ এ ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গারের প্রতি বর্ণবাদী আচরণের পৃথক দুটি ঘটনায় সাতজনকে শাস্তি দিয়েছে স্পেনের রাষ্ট্রীয় কমিশন।

তবে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়াইটা এখানেই শেষ হচ্ছে না। বর্ণবাদবিরোধী প্রচারণার অংশ হিসেবে আগামী মার্চে আন্তর্জাতিক বিরতিতে প্রীতি ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে ব্রাজিল ও স্পেন। এর মাধ্যমে ১১ বছর পর আন্তর্জাতিক ফুটবলে পরস্পরের মোকাবিলা করছে দল দুটি।

ব্রাজিল-স্পেন প্রীতি ম্যাচে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের তীব্র বার্তা থাকবে। ম্যাচটির ভেন্যু রিয়াল মাদ্রিদের সান্তিয়াগো বার্নাব্যু স্টেডিয়াম। মঙ্গলবার (১৩ জুন) সেই ম্যাচের পরিকল্পনা উপস্থাপন করেছেন ব্রাজিল এবং স্পেনের ফুটবল ফেডারেশন।

স্পেনের ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট লুইস রুবিয়ালেস এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আমি ঘোষণা করতে চাই যে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে স্পেন এবং ব্রাজিলের মধ্যকার ম্যাচটি সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্বের সেরা দুটি দলের মধ্যে মুখোমুখি হওয়ার জন্য এটি আদর্শ জায়গা।”

মার্চে আয়োজনের কথা থাকলেও ম্যাচটি মাঠে গড়ানোর নির্দিষ্ট কোনো দিনক্ষণ এখনও নির্ধারিত হয়নি। মূলত আগামী বছরে জার্মানিতে অনুষ্ঠিতব্য ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে স্পেনের সরাসরি অংশগ্রহণের টিকিট পাওয়ার ওপরই ম্যাচটির দিনক্ষণ নির্ভর করছে।

২০২২-২৩ মৌসুমে লা লিগায় রিয়াল মায়োর্কা, রিয়াল ভ্যালাদোলিদ, অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ, বার্সেলোনার, ভ্যালেন্সিয়া- অন্তত পাঁচটি প্রতিপক্ষের মাঠে বর্ণবাদী আক্রমণের শিকার হন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। কিন্তু ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে মেস্তায়া স্টেডিয়ামে বর্ণবাদের শিকার হয়ে ভিনিসিয়াস মাঠ ছেড়ে চলে যেতে উদ্যত হয়েছিলেন। যদিও শেষ পর্যন্ত তিনি খেলা চালিয়ে যান।

ভিনিসিয়াস চুপসে যাননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে তিনি লিখেন, “এটি প্রথম, দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয়বারও নয়। লা লিগায় বর্ণবাদ নৈমিত্তিক। প্রতিযোগিতাটি মনে করে এটি স্বাভাবিক, (স্প্যানিশ) ফেডারেশনও এটিকে স্বাভাবিক বলে মনে করে। প্রতিপক্ষের লোকজন এতে উৎসাহ দেয়।”

বর্ণবাদের শিকার এই তরুণ বলেন, “একসময় যে লিগ রোনালদিনহো, রোনালদো, ক্রিশ্চিয়ানো (রোনালদো) এবং (লিওনেল) মেসির ছিল। এটি এখন বর্ণবাদীদের দখলে। একটি সুন্দর জাতি আমাকে স্বাগত জানিয়েছিল। তাদের আমি ভালোবাসি। কিন্তু অনেকেই তাদের বর্ণবাদী ভাবমূর্তি তুলে ধরছে। আমি স্প্যানিয়ার্ডদের জন্য ব্যথিত। কিন্তু বাস্তবতা হলো, স্পেন এখন ব্রাজিলে বর্ণবাদীদের দেশ হিসাবে পরিচিত। দুর্ভাগ্যবশত প্রতি সপ্তাহে যা ঘটে, তা থেকে আমাকে রক্ষা করার কোনো উপায় তাদের কাছে নেই।”

এরপর সাবেক-বর্তমান তারকা ফুটবলার থেকে শুরু করে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লুলা ডি সিলভা, ফিফা প্রেসিডেন্ট জিয়ান্নি ইনফান্তিনোসহ আরও অনেকে ভিনিসিয়াসকে সমর্থন জানিয়ে তার পাশে দাঁড়ান। প্রতিবাদস্বরূপ ব্রাজিলের বৃহত্তম শহর রিও ডি জেনিরোর প্রতীক হিসেবে পরিচিত ক্রাইস্ট দ্য রিডিমারের আলো এক ঘণ্টা বন্ধ রেখে ভিনির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করা হয়। স্প্যানিশ দূতাবাসের সামনেও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন ব্রাজিলিয়ানরা। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূতের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক অভিযোগও দিয়েছেন তারা।

এরপর ভিনিসিয়াসের প্রতি বর্ণবাদী আচরণ ও ঘৃণা থেকে উদ্ভূত অপরাধ নিয়ে তদন্ত শুরু হয়। গত ৫ জুন খেলাধুলায় বর্ণবাদ, সংঘাত, বিদেশিদের প্রতি ঘৃণা ছড়ানো ও অসহিষ্ণুতার অভিযোগে সাতজনকে শাস্তি দেওয়া হয়।

গত ২৬ জানুয়ারি কোপা ডেল রে প্রতিযোগিতায় নগরপ্রতিদ্বন্দ্বী অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে রিয়াল মাদ্রিদের ম্যাচের আগে লস ব্লাঙ্কোসদের অনুশীলন মাঠের সামনে সেতু থেকে ভিনিসিয়াসের ২০ নম্বর জার্সি গায়ে একটি কালো প্রতিকৃতি ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে থাকা একটি ব্যানারে লেখা ছিল, “মাদ্রিদ শহর রিয়ালকে ঘৃণা করে।”

এ ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া চারজনকে ৬০ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৬৯ লাখ ৮ হাজার টাকা) জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি স্পেনের সব ধরনের ক্রীড়া ভেন্যুতে প্রবেশে তাদের দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

গত ২১ মে ভ্যালেন্সিয়ার মেস্তায়া স্টেডিয়ামে লা লিগার ম্যাচে বর্ণবাদের শিকার হয়ে মৌসুমজুড়ে মাঠে কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখানো ভিনিসিয়াসের ধৈর্য্যচ্যুতি ঘটে। সেই ঘটনায় প্রতিক্রিয়া দেখানোয় লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ২২ বছর বয়সী এ ব্রাজিলিয়ান। যদিও পরে রিয়াল ফরোয়ার্ডের লাল কার্ড তুলে নেওয়া হয়।

সেই ম্যাচে ভিনিসিয়াসের বিপক্ষে বর্ণবাদী আচরণের ঘটনায় তিন ব্যক্তিকে পাঁচ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫ লাখ ৭৫ হাজার ইউরো) জরিমানা করা হয়েছে। শুধু তাই না, স্পেনের সব ধরনের ক্রীড়া ভেন্যুতে প্রবেশে তাদের এক বছরের নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

About

Popular Links