Friday, June 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

প্রিয় মহাতারকাকে চোখের সামনে দেখে আত্মহারা জনপ্রিয় ইউটিউবার

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে ‘স্পিড’ নামে পরিচিত এ রোনালদো ভক্ত অনেকদিন ধরেই পর্তুগিজ মহাতারকার সঙ্গে সামনাসামনি দেখা করতে চাচ্ছিলেন

আপডেট : ১৮ জুন ২০২৩, ০৬:৪৩ পিএম

টিভি পর্দায় কিংবা গ্যালারি থেকে প্রিয় ফুটবলারকে খেলা দেখে মুগ্ধ হয়নি- এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। কিন্তু শুধু চর্মচোখে প্রিয় ফুটবলারকে দেখে অনেকেরই মন ভরে না। মনেপ্রাণে তারা প্রিয় তারকাকে একটু স্পর্শ করে দেখতে চান। এ কারণে কেউ কেউ দূরত্ব, নিরাপত্তারক্ষী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ রাঙানিকেও পরোয়া করেন না।

কিছুদিন আগে চীনের বেইজিংয়ে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে আর্জেন্টিনার ম্যাচে এমন এক লিওনেল মেসি ভক্তের দেখা মিলেছিল। নিরাপত্তা বলয় ভেঙে স্টেডিয়ামে মেসিকে ছুঁয়ে নিষেধাজ্ঞা পেলেও সেই ভক্তের মধ্যে বিন্দুমাত্র আফসোস ছিল না। এবার দেখা মিলল এমন এক ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ভক্তের। সেই ভক্তকে অবশ্য মেসি সমর্থকের মতো শাস্তি পেতে হয়নি। তবে রোনালদোকে সামনে পেয়ে তার যে অবস্থা হয়েছিল, তাতে অনেকেই সেই ভক্তের মাঝে নিজেকে খুঁজে পাবেন।

ইউটিউব স্ট্রিমিংয়ের অভ্যাস থাকলে “আইশোস্পিড” নামটা নিশ্চয়ই শোনা আছে অনেকের। ব্যক্তিত্ব ও কৌতুক করার দক্ষতায় ভীষণ জনপ্রিয় এ ইউটিউবারের আসল নাম ড্যারেন ওয়াটকিনস জুনিয়র। ইউটিউবের অন্যতম সেরা কনটেন্ট নির্মাতা আর বিখ্যাত এই লাইভস্ট্রিমার একজন পাঁড় রোনালদো ভক্ত। বিভিন্ন লাইভ স্ট্রিমে তিনি প্রায়ই রোনালদো নিয়ে নিজের মুগ্ধতার কথা বলেন।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে “স্পিড” নামে পরিচিত এ রোনালদো ভক্ত অনেকদিন ধরেই পর্তুগিজ মহাতারকাকে সামনাসামনি দেখা করতে চাচ্ছিলেন। রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে থাকাকালে একবার তো যুক্তরাষ্ট্র থেকে ওল্ড ট্রাফোর্ডেই উড়ে এসেছিলেন। তবে রেড ডেভিলরা সেদিন রোনালদোকে স্কোয়াডে না রাখায় স্পিডের ইচ্ছেটা অপূর্ণই থেকে যাবে।

কিন্তু প্রিয় রোনালদোর দেখা পেতে স্পিড হাল ছেড়ে দেননি। শনিবার (১৭ জুন) ইউরো ২০২৪ এর বাছাইপর্বের ম্যাচে ঘরের মাঠে বসনিয়া এবং হার্জেগোভিনার মুখোমুখি হয়েছিল পর্তুগাল। রোনালদোকে প্রথমবারের মতো দেখতে ম্যাচের ভেন্যু এস্তাদিও দে লুইজ স্টেডিয়ামে ছুটে এসেছিলেন সম্প্রতি স্নাতক সম্পন্ন করা স্পিড। আর এসেওই পেয়ে গেলেন নিজের জীবনের সেরা উপহার।

পর্তুগালের উইঙ্গার রাফায়েল লিয়াওয়ের সঙ্গে আগেই কথা বলে রেখেছিলেন স্পিড। স্টেডিয়াম থেকে রোনালদো যখন গাড়িতে করে বেরোচ্ছিলেন, তখন এক পাশেই স্পিডকে নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন লিয়াও। রোনালদোর গাড়ি দেখেই হাত ইশারা করে থামতে বলেন লিয়াও। এরপর গাড়ির কাছে গিয়ে লিয়াও হাত দিয়ে ইশারা করে রোনালদোকে কিছু একটা বলেন।

রোনালদোকে লিয়াও কী বলেছিলেন, কে জানে। তবে এরপরই স্পিডের সেই মাহেন্দ্রক্ষণ আসে। রোনালদো গাড়ির দরজা খোলার সময়ই আনন্দে শিশুর মতো লাফাচ্ছিলেন স্পিড। ৩৮ বছর বয়সী পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড গাড়ি থেকে বেরিয়ে সামনে আসতেই আনন্দে উদ্বেলিত হয়ে অস্থির হয়ে উঠেছিলেন এ ইউটিউবার।

রোনালদো কাছে আসার আগেই রীতিমতো অবাক করা দৃষ্টিতে ও মাই গড! ও মাই গড! বলে চিৎকার করে উঠছিলেন। রোনালদো একটু কাছে আসতেই হাঁটু মুড়ে বসে পড়েন স্পিড। এরপর কান্নামিশ্রিত কণ্ঠে কিছু একটা বলেই জড়িয়ে ধরেন রোনালদোকে। স্বয়ং রক্ত-মাংসের রোনালদো তার সামনে দাঁড়িয়ে- স্পিডের যেন সেটা বিশ্বাসই হচ্ছিল না।

রোনালদো সামনে পেয়ে তাকে জড়িয়ে ধরেই আবেগে কাঁপতে কাঁপতে স্পিড দেখিয়েছেন নিজের বাঁ হাতে আঁকা রোনালদোর ট্যাটু। প্রিয় তারকাকে আলিঙ্গনের পরই জনপ্রিয় এ ইউটিউবার ব্যস্ত হয়ে যান ছবি তোলার জন্য। ছবি তোলার সঙ্গে রোনালদোকে নিয়ে তার বিখ্যাত সিউ গোল উদযাপনও সেরেছেন তিনি।

সব মিলিয়ে রোনালদোকে কাছে পেয়ে স্পিড যেন বায়না ধরে কাঙ্ক্ষিত খেলনা পাওয়া এক শিশু হয়ে উঠেছিলেন। রোনালদোও হয়তো তার ভক্তের এমন পাগলামিপূর্ণ ভালোবাসায় বিমুগ্ধ হয়েছিলেন। স্পিডের সগে থাকা অবস্থায় পুরোটা সময়ই তাই মুখে হাসি রেখেছিলেন। এক কথায় পুরো মুহূর্তটাই তারকা-ভক্তের মিলনমেলার যথার্থ দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছিল।

তবে স্পিডের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস অব্যাহত ছিল রোনালদোর প্রস্থানের পরও। রোনালদো চলে যাওয়ার পর পর্তুগালের জার্সি পরিহিত স্পিড লাফাতে লাফাতে স্পিড বলছিলেন, আই ডিড ইট! আই ডিড ইট! টোল্ড ইউ ব্রো, আই ডিড ইট! শুধু তাই না, সে জায়গাতেই বসে পড়ে ও মাই গড! বলতে বলতে চিৎকার করছিলেন। যেন কিছুক্ষণ আগের পুরো সময়ের ঘোর তার তখনও কাটেনি।

স্পিডের পাশাপাশি পুরো ইউটিউব চ্যাট গ্রুপও উত্তেজনায় ফেটে পড়ে তার সঙ্গে রোনালদোর সাক্ষাৎ হওয়ার উপলক্ষ উদযাপন করে। রোনালদোর দেখা পেতে স্পিডের এ লম্বা যাত্রায় অনেকেই তাকে সমর্থন দিয়ে পাশে ছিলেন। আইশোস্পিড ক্যারিয়ারে অনেক কিছু অর্জন করেছেন। হয়ে উঠেছেন ইউটিউবের খ্যাতিমান লাইভস্ট্রিমারদের একজন। কিন্তু প্রিয় তারকার সঙ্গে সাক্ষাতের মুহূর্তটি যেন তার সব প্রাপ্তিকেই ছাড়িয়ে গেছে।

About

Popular Links