Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

‘বাংলাদেশিরা ইতালি গেলে ফেরে না’, দাবা দলকে ভিসা দেয়নি দূতাবাস

ইতালি দূতাবাস ভিসা না দেওয়ায় খেলোয়াড়দের প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক দাবা বিচারক হারুনুর রশিদ

আপডেট : ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০৫:০২ পিএম

বাংলাদেশিরা ইতালি গেলে আর ফিরে আসে না এই অভিযোগে বাংলাদেশ দাবা দলকে বিশ্ব জুনিয়র দাবায় অংশ নিতে ভিসা দেয়নি ইতালির দূতাবাস। ১১-২৩ অক্টোবর ইতালির সার্দিনিয়া শহরে ফিদের তালিকাভুক্ত অনূর্ধ্ব-২০ এই টুর্নামেন্ট হওয়ার কথা রয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ভিসার আবেদন করা হয়েছিল দুজন ছেলে ও পাঁচজন মেয়ে দাবাড়ু। কিন্তু ভিসা দেওয়া হয়নি কাউকেই।

বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সদস্য ও টিম লিডার মাহমুদা চৌধুরী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “দূতাবাসে আমরা সব কাগজপত্রই জমা দিয়েছিলাম। বিস্তারিত জানিয়ে বিশ্ব দাবা সংস্থা ফিদে থেকে চিঠিও দেওয়া হয় দূতাবাসে। সেই চিঠির কোনো গুরুত্বই তারা দেয়নি।

ঢাকায় ইতালির রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে দেখা করার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, “রাষ্ট্রদূত আমার সঙ্গে ঠিকভাবে কথা বলতে চাননি। সাফ বলে দিয়েছেন, বাংলাদেশিরা ইতালি গেলে আর ফিরে আসে না। কাজেই বাংলাদেশের এ দাবা দলকে ভিসা দেওয়া হবে না। আর কোনো কাগজপত্র বা কেউ সুপারিশ করলেও কাজ হবে না। ভিসা দেবে না পণ করেছে তারা। জীবনে কখনো এমন অভিজ্ঞতা হয়নি।”

মাহমুদা বলেন, “এর আগে আমরা ইউরোপ, আমেরিকাসহ অনেক দেশে দল নিয়ে গিয়েছি। কোথাও সমস্যা হয়নি। বরং সব ক্ষেত্রে সম্মানের সঙ্গে দ্রুত ভিসা পেয়েছি। বাংলাদেশের প্রতি একটা ভ্রান্ত ধারণা থেকে ইতালি আমাদের ভিসা দেয়নি, যা দুঃখজনক। বর্তমানে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ দাবা দল অলিম্পিয়াডে খেলছে আজারবাইজানে। তাদেরও ভিসা পেতে কোনো সমস্যা হয়নি।”

এবার বিশ্ব জুনিয়র দাবায় যেতে চাওয়া সাত খেলোয়াড়ের দুজনের খরচ দেওয়ার কথা ছিল ফেডারেশনের। বাকিরা নিজ দল বা পৃষ্ঠপোষকের মাধ্যমে খরচ জোগাড় করেন। রোম থেকে ভেন্যুতে যেতে বিমানে অফেরতযোগ্য টিকিটও কাটা হয়ে গিয়েছিল। টিকিট কাটা হয় ঢাকা থেকে ইতালিরও। সঙ্গে ভিসা ফিসহ আনুষঙ্গিক খরচ তো আছেই।

ইতালি দূতাবাস ভিসা না দেওয়ায় খেলোয়াড়দের প্রায় সাড়ে চার লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক দাবা বিচারক হারুনুর রশিদ। 

তিনি বলেন, “এটি ছিল আন্তর্জাতিক দাবা সংস্থা ফিদের তালিকাভুক্ত টুর্নামেন্ট। একটা দেশ যখন কোনো টুর্নামেন্টের আয়োজন করে, তখন ভিসার ব্যাপারটা তারাই নিশ্চিত করে। কিন্তু ইতালির আয়োজকেরা সেটা করতে পারল না। গত মাসে ১৭-১৮ তারিখ থেকে জমা দেওয়া হয় খেলোয়াড়দের ভিসার আবেদন। দূতাবাস একেক দিন একেকজনের ভিসার আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে। এখনো একজনের পাসপোর্ট আছে দূতাবাসে। তবে তারা বলে দিয়েছে কাউকেই ভিসা দেবে না।”

২০১৯ সালে সর্বশেষ বিশ্ব জুনিয়র দাবা হয়েছিল দিল্লিতে। সেবারও বাংলাদেশ দল অংশ নিয়েছিল।

About

Popular Links