Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছাদ খোলা বাসে উদযাপনের সময় বিপদের মুখে মেসিরা, বাঁচলেন অল্পের জন্য

মেসিরা যখন সবাই চলন্ত বাসের ছাদে দাঁড়িয়ে জনতার অভিবাদনের জবাব দিচ্ছেন, ঠিক তখনই রাস্তার ঝুলন্ত তার এসে পড়ে তাদের সামনে

আপডেট : ২০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:০৯ পিএম

কখন বিশ্বকাপ নিয়ে দেশে পৌঁছাবেন চ্যাম্পিয়নরা। ফাইনাল শেষে রাতভর বুয়েন্স এইরেসে চলে এই অপেক্ষা। হাজারো মানুষ মেসিদের বহনকারী বিমানটির “ফ্লাইট ট্র্যাকিংয়ের” মাধ্যমে খবর রাখেন। রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার বিমানটি দোহা থেকে রওনা করে যাত্রা বিরতি নেয় রোমে। স্থানীয় সময় রাত আড়াইটার দিকে রাজধানী বুয়েন্স এইরেসের বিমানবন্দরে অবতরণ করেন বিশ্বকাপজয়ী মেসিরা।

সোমবার (১৯ ডিসেম্বর) স্থানীয় সময় রাতে ছাদখোলা বাসে চড়ে আর্জেন্টিনা দল সমর্থকদের ভিড়ের মধ্য দিয়ে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছিল। তাদের সবার গলায় সোনার মেডেল। একটু পরপর বিশ্বকাপ ট্রফিটা উঁচিয়ে ধরেন খেলোয়াড়রা, উল্লাসে ফেটে পড়ে চারপাশ। সে সময় জ্বলছিল হাজার হাজার মোবাইলের ফ্ল্যাশলাইট, উড়ছিল পতাকা; যেন অন্যরকম এক জগত।

গভীর রাতে বুয়েন্স এইরেসে পৌঁছে সেখান থেকেই লিওনেল মেসি, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, নিকোলাস ওতামেন্দিরা সোজা চলে গেছেন বিমানবন্দর টারমাকে অপেক্ষমাণ ছাদখোলা বাসে। সেই বাসে করেই শহর প্রদক্ষিণ করেছেন তারা। 

বুয়েন্স এইরেসের রাস্তায় গভীর রাতে জড়ো হওয়া হাজার হাজার ভক্ত-সমর্থকের অভিনন্দন বার্তা গ্রহণ করেছেন মেসিরা। কিন্তু বাস প্যারেডের মধ্যেই অল্পের জন্য দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে গেছেন মেসিসহ আর্জেন্টিনার বেশ কয়েকজন ফুটবলার।

বিমান থামার সঙ্গে সঙ্গেই কোচ লিওনেল স্কালোনির সঙ্গে বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে নেমে আসেন মেসি। হাজার হাজার মানুষ আনন্দধ্বনিতে স্বাগত জানায় আর্জেন্টিনা দলকে। মেসি এর পরপরই ট্রফি হাতে গিয়ে ওঠেন বাসের ছাদে। লিওনেল মেসির সঙ্গে ছিলেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, নিকোলাস ওদামেন্দি, রদ্রিগো ডি পল ও লিয়ান্দ্রো পারেদেসরা।

তারা সবাই ছাদখোলা বাসের এক পাশে ছোট একটা ছাদে দাঁড়িয়ে যখন জনতার অভিবাদনের জবাব দিচ্ছেন, ঠিক তখনই রাস্তার ঝুলন্ত তার এসে পড়ে তাদের সামনে। দ্রুতই মাথা নিচু করে তারা দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচেন। মেসিকে মাথার সঙ্গে সঙ্গে হাতে থাকা বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়েও ভাবতে হয়েছে। তবে এক পাশে থাকা লিয়ান্দ্রো পারেদেস মাথায় আঘাত পেয়েছেন। মাথায় থাকা টুপিও হারিয়েছেন এই আর্জেন্টাইন ফুটবলার।

১৯৮৬ সালের পর এবং এবারের আগে আরও দুইবার ফাইনাল খেলেছিল আর্জেন্টিনা। দুইবার খুব কাছে গিয়ে তাদের হৃদয় ভাঙে। ১৯৯০ সালের পর ২০১৪ আসরে তারা শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে হেরে যায় জার্মানদের কাছে, দুইবারই ১-০ গোলে।

পুরোনো সব হতাশা মুছে গত রবিবার কাতার বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ম্যাচটি নির্ধারিত সময়ে ২-২ ড্র হয়। অতিরিক্ত সময় শেষ হয় ৩-৩ সমতায়। বিশ্বকাপে নিজের শেষ ম্যাচে দুটি গোল করেন মেসি। হ্যাটট্রিক উপহার দেন কিলিয়ান এমবাপে। পরে টাইব্রেকারে ৪-২ গোলে জেতে আর্জেন্টিনা।

About

Popular Links