Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হচ্ছে ভারত-অস্ট্রেলিয়া

সংস্কার ও পুনর্নির্মাণের পর স্টেডিয়ামটিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর একটি সমাবেশ করা হয়। সেই সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

আপডেট : ০৮ মার্চ ২০২৩, ০৯:১৮ পিএম

“সরদার প্যাটেল স্টেডিয়াম” নামে পরিচিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম ভারতের আহমেদাবাদে প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮২ সালে। স্টেডিয়ামটি ২০১৫ সালে পুনর্নির্মাণের পর নাম রাখা হয়  “নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়াম”।

সংস্কার ও পুনর্নির্মাণের পর ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে স্টেডিয়ামটিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একটি সমাবেশ করা হয়। সেই সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে এক লাখেরও বেশি মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

এই স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার (৯ মার্চ) চতুর্থ ও শেষ টেস্ট ম্যাচের মুখোমুখি হবে সফররত অস্ট্রেলিয়া ও স্বাগতিক ভারত। ম্যাচটি সরাসারি উপভোগ করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজ। এ উপলক্ষে এই দুই নেতার ছবি দিয়ে মাঠে বিলবোর্ড বসানো হয়েছে।

স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ১ লাখ ৩২ হাজার। গত বছরের মে মাসে এই স্টেডিয়ামটিতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছিল।তখন একই সঙ্গে ১ লাখ ৪ হাজার দর্শক গ্যালারিতে উপস্থিত থেকে খেলাটি উপভোগ করেন।

পুনর্নির্মাণের জন্য স্টেডিয়ামটিতে প্রায় ১০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করা হয়। প্রতিটি আসন থেকে দারুণভাবে খেলা উপভোগের সুযোগ রাখা হয়।

বৃহস্পতিবার শুরু হতে যাওয়া অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যকার ম্যাচে কত পরিমাণ টিকেট বিক্রি হয়েছে তা জানায়নি আয়োজকরা। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এক লাখের বেশি টিকিট বিক্রি হয়েছে।

স্টেডিয়ামটিতে খেলতে পেরে দারুণ উচ্ছ্বসিত অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। দলের স্টিভ স্মিথ বলেন, “এটি একটি সুন্দর পরিবেশ হবে। ভালো সুযোগও।”

বিশাল এই স্টেডিয়ামটি তৈরি করা হয়েছে ৬৩ একর জমির ওপর। চারদিক থেকে স্টেডিয়ামটিতে প্রবেশ করা যাবে। এতে অনেকগুলো ড্রেসিং রুম, ইনডোর প্রাকটিস পিচ, আউটডোর পিচ, এমনকি ৪০ জন অ্যাথলেটের থাকার উপযোগী একটি ডরমিটরিও আছে। এছাড়া কোচ, ফিজিও ও ট্রেনারদের জন্যও আলাদা জায়গা আছে।

পুনর্নির্মাণের আগে স্টেডিয়ামটিতে ৫৪ হাজার দর্শকের ধারণক্ষমতা ছিল। স্টেডিয়ামটির নকশা এমনভাবে করা হয়েছে যাতে বাধাহীনভাবে দর্শকরা পিচ দেখতে পারে। এখানে রয়েছে সর্বাধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা; যাতে করে বৃষ্টি হলে দ্রুত মাঠ শুকিয়ে যায় ফলে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক কম। এলইডি লাইট সংযোজন করা হয়েছে পুরো ছাদ জুড়ে যা বাড়িয়েছে নান্দনিকতা।

About

Popular Links