Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

১১ বছর পর বার্সাকে বিদায় বলছেন জর্দি আলবা

২০১২ সালে বার্সেলোনায় যোগ দিয়েছিলেন আলবা, এরপর ধীরে ধীরে বাঁ প্রান্তে নিজেকে নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় হিসেবে প্রমাণ করেছেন এই স্প্যানিয়ার্ড

আপডেট : ২৫ মে ২০২৩, ০৩:৩৮ পিএম

১১ বছরের বন্ধন ছিন্ন করে এই মৌসুম শেষে ক্যাম্প ন্যু ছাড়বেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন স্প্যানিশ লেফট-ব্যাক জর্দি আলবা।

২০১২ সালে বার্সেলোনায় যোগ দিয়েছিলেন আলবা। এরপর ধীরে ধীরে বাঁ প্রান্তে নিজেকে নির্ভরযোগ্য খেলোয়াড় হিসেবে প্রমাণ করেছেন এই স্প্যানিয়ার্ড। দলের বহু জয়ে রেখেছেন প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা।

কাতালান ক্লাবটির হয়ে জিতেছেন ১৯টি ট্রফি। বার্সায় আলবা সব মিলিয়ে খেলেছেন ৪৫৮ ম্যাচ, যেখানে সাকল্যে মাঠে ছিলেন ৩৭ হাজার ৫৯৯ মিনিট। এ সময়ে মাঠে গোলও করেছেন ২৭টি, আর সহায়তা করেছেন ৯৯ গোলে।

বার্সায় লিওনেল মেসির সঙ্গে দারুণ জুটিও গড়ে তুলেছিলেন আলবা। তার অ্যাসিস্ট থেকে অনেক গোল করেছেন মেসি। তবে এ মৌসুমে বয়স ও ছন্দের কারণে আগের অবস্থান ধরে রাখতে পারেননি আলবা। মৌসুমে অনেক ম্যাচে শুরু করেছেন বেঞ্চ থেকে। 

বার্সার সঙ্গে আলবার চুক্তির মেয়াদ ছিল ২০২৪ সাল পর্যন্ত। কিন্তু আর্থিক চাপে থাকা ক্লাবটি তাকে বিদায় দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ৩৪ বছর বয়সী ডিফেন্ডার আলবা অবশ্য বার্সেলোনায় চুক্তির মেয়াদ শেষ করতে চেয়েছিলেন।

এমনকি এজন্য বেতন কমাতেও রাজি ছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দুই পক্ষ আলাদা হয়ে যাওয়ার পথেই হাঁটছে।

তাই হয়তো অন্য কোথাও ঠিকানা খুঁজে নিতে চান ৩৪ পেরোনো এই লেফট ব্যাক।

নিজের বিদায়ের ঘোষণা দিয়ে আলবা বলেছেন, “আমি ঘোষণা দিতে চাই, এটা বার্সা খেলোয়াড় হিসেবে আমার শেষ মৌসুম। এ সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ ছিল না। তবে আমি আনন্দের সঙ্গে বিদায় নিচ্ছি।”

বার্সার হয়ে যাত্রা শুরুর সময়টাকে মনে করে আলবা আরও বলেছেন, “২০১২ সালে আমি ক্যাম্প ন্যুতে এসেছিলাম, সেটি অনন্যসাধারণ একমুহূর্ত ছিল। ১১ মৌসুম পর আমি যা জিতেছি, তা নিয়ে গর্বিত এবং যা অর্জন করেছি, তা নিয়ে পুরোপুরি সন্তুষ্ট।”

বার্সায় সময়টা যে উত্থান-পতনের ছিল, সেটিও মনে করেছেন এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার, “এখানে সবকিছু যে আনন্দের ছিল, তা নয়। কারণ, আমাদের কঠিন সময়ও পার করতে হয়েছে। কিন্তু ঐক্যবদ্ধভাবে সব মোকাবিলা করেছি। ক্যাম্প ন্যুতে ছুটে বেড়ানো, সমর্থকদের কাছ থেকে সাহস পাওয়া, তাদের ভালোবাসা এবং দারুণ মুহূর্তে তাদের আনন্দ আমি খুব মিস করব।”

About

Popular Links