Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিলেন মাহমুদউল্লাহ

মাহমুদউল্লাহ তার দীর্ঘ ১২ বছরের টেস্ট ক্রিকেট ক্যারিয়ার আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ করলেন

আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০২২, ১১:৩৩ এএম

অবশেষে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসরের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

যদিও এ বছরের জুলাইয়ে বাংলাদেশের জিম্বাবুয়ে সফরের সময় ডানহাতি এই অলরাউন্ডারের ক্রিকেটের দীর্ঘ সংস্করণ ছাড়ার গুঞ্জন উঠেছিল। তবে এবার বুধবার (২৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) থেকে এই ক্রিকেটারের সিদ্ধান্তের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা নিশ্চিত করা হয়েছে।

বিসিবি মিডিয়া উইং থেকে আসা এই ঘোষণার মাধ্যমে মাহমুদউল্লাহ তার দীর্ঘ ১২ বছরের টেস্ট ক্রিকেট ক্যারিয়ার আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ করলেন।

এটা থেকে অনুমান করা যায় যে, মাহমুদউল্লাহ অবসরের বিষয়ে বিসিবি থেকে আনুষ্ঠানিক ছাড়পত্রের অপেক্ষায় ছিলেন, বিশেষ করে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসানের সম্মতির পর এটি জানানো হয়েছে।

এ বছরের জুলাইয়ে হারারে স্পোর্টস ক্লাবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩৫ বছর বয়সী মাহমুদউল্লাহ তার ৫০তম এবং শেষ টেস্ট খেলেন, যেখানে বাংলাদেশ ২২০ রানের রেকর্ড ব্যবধানে জয়লাভ করে।

ডানহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান তার শেষ ইনিংসে অপরাজিত ১৫০ রান করেন, যেটি টেস্টে তার পঞ্চম সেঞ্চুরি। ওই ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ও নির্বাচিত হন তিনি।

সব মিলিয়ে টেস্টে মাহমুদউল্লাহ ৩৩.৪৯ গড়ে ২৯১৪ রান করেছেন এবং ৪৩ উইকেট নিয়েছেন।

ছয়টি টেস্ট ম্যাচে বাংলাদেশের অধিনায়কত্বও করেছেন তিনি।

বুধবার গণমাধ্যমে পাঠানো বিসিবির বিবৃতিতে মাহমুদউল্লাহ বলেন, “অনেক দিন ধরে খেলা ফরম্যাটকে বিদায় বলা সহজ কাজ নয়। আমি সব সময় উন্নতি করার চেষ্টা করেছি এবং বিশ্বাস করি টেস্টকে বিদায় জানানোর জন্য এটাই সঠিক সময়।”

বাংলাদেশের বর্তমান টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ বলেন, “টেস্ট দলে ফিরতে সমর্থন দেওয়ার জন্য বিসিবি সভাপতিকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। আমাকে উৎসাহ দেওয়া ও সামর্থ্যের ওপর বিশ্বার রাখার জন্য সতীর্থ ও সাপোর্ট স্টাফদেরও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। বাংলাদেশের হয়ে টেস্ট ক্রিকেট খেলতে পারাটা পরম সম্মান ও সৌভাগ্যের বিষয় এবং অনেক স্মৃতি আমি রোমন্থন করবো। যদিও আমি টেস্ট থেকে অবসর নিচ্ছি, আমি ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলে যাবো এবং সাদা বলে খেলার সময় দেশের জন্য সর্বোচ্চটা দেওয়ার চেষ্টা করবো।”

সর্বশেষ জিম্বাবুয়ে সফরে হারারে টেস্ট চলাকালে এই ফরম্যাট থেকে মাহমুদউল্লাহ অবসর নিচ্ছেন বলে খবরা প্রকাশ হলে তা দেশের ক্রিকেট মহলে আলোড়ন তোলে।

সে সময় টেস্টের তৃতীয় দিনের পরে ৩৫ বছর বয়সী মাহমুদউল্লাহ দলের কাছে অবসরের আভাস দিয়েছিলেন ।

আলোচনা-সমালোচনার পর এই ফরম্যাটে সবেমাত্র ফিরেই মাহমুদউল্লাহর কাছ থেকে আসা এই সিদ্ধান্তটি একটি ধাক্কা হিসেবে এসেছিল।

ফর্মহীনতার কারণে টেস্ট থেকে বাদ পড়ার ১৭ মাস পর দলে ফিরেই অপরাজিত ১৫০ রানের মাধ্যমে রাজসিক প্রত্যাবর্তন করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ।

গুঞ্জন ছিল যে নির্বাচক প্যানেলের কাছে এই ফরম্যাটের জন্য উপেক্ষিত থাকায় আবেগতাড়িত হয়ে এমন সিধান্ত নিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ।

অপরাজিত ১৫০ রান করার মাধ্যমে মাহমুদউল্লাহ দেখিয়েছিলেন যে তিনি এখনও 'টেস্ট খেলার জন্য উপযুক্ত'।

জিম্বাবুয়ে টেস্টের আগে মাহমুদউল্লাহ ২০২০ সালের জানুয়ারিতে রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার শেষ টেস্ট খেলেছিলেন। পরবর্তীতে গতবছর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এবং এই বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ থেকে বাদ পড়েন তিনি।

২০২০ সালে শুধুমাত্র সাদা বলের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা হাতে গোনা কয়েকজন ক্রিকেটারদের মধ্যেও তিনি ছিলেন।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রাথমিক দল ঘোষণার তিন দিন পর ইনজুরিতে থাকা ওপেনার তামিম ইকবাল এবং মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের ব্যাক আপ হিসেবে মাহমুদউল্লাহকে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই ম্যাচের হোম সিরিজের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ টেস্ট দল।

শুক্রবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

About

Popular Links