Monday, May 20, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অনবরত বিদ্রুপের শিকার ছেলে, মানতে পারছেন না ম্যাগুয়েরের মা

  • সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিনিয়তই ম্যাগুয়েরকে নিয়ে বিদ্রুপ করা হয়
  • এরই মধ্যে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ইউরো বাছাইপর্বের ম্যাচে বদলি হিসেবে মাঠে নেমে আত্মঘাতী গোল করেন এই ডিফেন্ডার  
আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৫:৫৫ পিএম

ফুটবলারদের জীবন যেমন বৈচিত্র্যময়, তেমনি উত্থান-পতনে ভরপুর। স্বীয় নৈপুণ্যে দর্শকদের মাতাতে পারলে যেমন হর্ষধ্বনি জোটে, তেমনি আশানুরূপ ফলাফল এবং পারফরম্যান্স না এলে প্রায় সমর্থকদের কাছ থেকেও হজম করতে হয় দুয়ো। গ্যালারি থেকে তো দুয়ো শুনতে হয়ই, ইন্টারনেটের সহজলভ্যতার এ যুগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও দর্শক-সমর্থকদের আক্রোশ থেকে খেলোয়াড়দের মুক্তি নেই।

প্রথমটা না হলেও দ্বিতীয়টির অনুভূতি বিগত কয়েক বছর ধরে সম্ভবত হ্যারি ম্যাগুয়েরই সবচেয়ে ভালো বুঝেছেন। ফুটবল মাঠে অদ্ভুতুড়ে সব ডিফেন্ডিং, হাস্যকর ট্যাকলিং, ভুলভাল পাসিং, সতীর্থকে আঘাত করা ইত্যাদি মিলিয়ে এই ইংলিশ ফুটবলারই সবচেয়ে বেশি হাস্যরসের পাত্র হয়ে আসছেন। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তো প্রতিনিয়তই ম্যাগুয়েরকে নিয়ে বিদ্রুপ চলে।

ছেলের এমন পরিণতি যেকোনো মায়ের পক্ষেই মেনে নেওয়া কষ্টকর। স্বাভাবিকভাবেই ম্যাগুয়েরের এমন অবস্থা মেনে নিতে পারছেন না তার মা-ও। তাই ছেলের প্রতি অমানবিক এবং অসম্মানজনক আচরণের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন ৩০ বছর বয়সী এই ইংলিশ ডিফেন্ডারের মা। সেখানে তিনি সমালোচকদের এক হাতও নিয়েছেন।

 

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) গ্লাসগোর হ্যাম্পডেন পার্কে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইপর্বের ম্যাচে ইংল্যান্ডের শুরুর একাদশে ছিলেন না ম্যাগুয়ের। তবে মধ্যবিরতি শেষে দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নামার পর ৬৭ মিনিটে নিজেদের জালে বল জড়ান এই সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার। যদিও শেষ পর্যন্ত স্কটিশদের বিপক্ষে ঠিকই ৩-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে থ্রি লায়ন্সরা। কিন্তু ম্যাগুয়েরকে নিয়ে সমালোচনা ও ঠাট্টা-বিদ্রুপ বন্ধ থাকেনি।

স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে আত্নঘাতী গোলের পর ছেলের সমালোচনার জবাবে ম্যাগুয়েরের মা বলেন, “কিছু ভক্ত, ফুটবল বিশ্লেষক, গণমাধ্যমের কাছ থেকে যে নেতিবাচক এবং আপত্তিজনক মন্তব্যগুলো পেতে হচ্ছে, একজন মা হিসেবে তা দেখাটা লজ্জাজনক। ক্লাব ও দেশের জন্য কোনো কিছু করতে পিছপা না হওয়া একজনকে এসবের মুখোমুখি হতে হওয়াটা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য।”

তিনি আরও বলেন, “আমি যথারীতি স্ট্যান্ডে ছিলাম। বিষয়টি নিয়ে যা সৃষ্টি হয়েছে, তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমি বুঝতে পারি যে ফুটবলের উত্থান-পতন আর ইতিবাচক-নেতিবাচক দিক রয়েছে। তবে হ্যারিকে (ম্যাগুয়ের) যেসবের মুখোমুখি হতে হয়েছে, তা ফুটবলীয় সীমার বাইরে চলে গেছে। তাকে এ ধরনের পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে দেখাটা কষ্টকর।”

ইংলিশ ডিফেন্ডারের মা বলেন, “ভবিষ্যতেও অন্য কোনো অভিভাবক কিংবা খেলোয়াড়দের বিশেষ করে তরুণ কিংবা উঠতি বয়সের কাউকে এমন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যেতে দেখলে খারাপ লাগবে। হ্যারির একটি বড় মন রয়েছে। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও সে নিজেকে মানসিকভাবে শক্ত রাখতে পারছে, যেমনটা অন্যরা করতে সক্ষম নাও হতে পারে। আমি চাই এ ধরনের পরিস্থিতি আর কারো না হোক।”

About

Popular Links