Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আসন্ন বিশ্বকাপে তুরুপের তাস হতে পারেন যে পাঁচ অলরাউন্ডার

ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই অবদান রাখতে পারায় বর্তমানে অলরাউন্ডারদেরই যেকোনো দলের সাফল্যের কারিগর ধরা হয়

আপডেট : ০৩ অক্টোবর ২০২৩, ০৬:৪৭ পিএম

দুয়ারে কড়া নাড়ছে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ। চার বছরের প্রতীক্ষা শেষে একদিন পরই ভারতে শুরু হবে ওয়ানডে বিশ্বকাপের ত্রয়োদশ আসর। বৃহস্পতিবার (৫ অক্টোবর) আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠবে একদিনের ক্রিকেটের বিশ্বযজ্ঞের।

ক্রিকেটে ব্যাটিং কিংবা বোলিং যেকোনো ক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের ভূমিকা রাখার সুযোগ থাকে। তবে যারা ব্যাটিং-বোলিং দুই বিভাগেই অবদান রাখতে পারেন, নিঃসন্দেহে তারা দলের বড় সম্পদ। তাই দলের সাফল্যের কারিগর ধরা হয় অলরাউন্ডারদেরই।

২০১৯ সালে সর্বশেষ ওয়ানডে বিশ্বকাপে অলরাউন্ডাররাই পুরো আলো নিজেদের দিকে কেড়ে নিয়েছিলেন। আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপেও সাফল্যের জন্য অলরাউন্ডারদেরই তুরুপের তাস ধরা হচ্ছে। ক্রিকেটপ্রেমীরা আসন্ন বিশ্বকাপে নিচের পাঁচ অলরাউন্ডারের দিকে চোখ রাখতে পারেন-

হার্দিক পান্ডিয়া (ভারত)

ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) গুজরাট টাইটান্সকে টানা দুইবার শিরোপা জেতাতে বড় ভূমিকা রেখেছেন হার্দিক পান্ডিয়া। মাঝে পিঠের চোট বাগড়া দিলেও ব্যাটিং-বোলিং দুই জায়গায়ই কার্যকর ছিলেন ২৯ বছর বয়সী এই ভারতীয় ক্রিকেটার।

ভারতের দুর্দান্ত ব্যাটিং লাইনআপে পান্ডিয়া মূলত মিডল অর্ডারেই ব্যাট হাতে নামেন। তবে আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের কারণে দ্রুতগতিতে রান সংগ্রহের জন্য ডানহাতি ব্যাটারকে ওপরেও পাঠানোর সুযোগ রয়েছে। মাঝের ওভারগুলোয়ও ব্রেক থ্রুর জন্য ভরসার জায়গা ডানহাতি মিডিয়াম পেসার।

মিচেল মার্শ (অস্ট্রেলিয়া)

ট্র্যাভিস হেডের চোটের পর ডেভিড ওয়ার্নারের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস উদ্বোধনের গুরুদায়িত্ব সবার আগে চেপেছে মিচেল মার্শের কাঁধে। আয়োজক ভারতের মাটিতে এ বছর পাঁচ ম্যাচে ব্যাট হাতে নামা এ ডানহাতি ক্রিকেটারের ব্যাটিং গড় ৭৫।

বিশ্বকাপের আগে সম্প্রতি ভারতের মাটিতে স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে ২-১ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ জয়ে বড় ভূমিকা রাখেন মার্শ। তিন ম্যাচে ১৯৪ রান করে সিরিজসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও বগলদাবা করেন ৩১ বছর বয়সী এ অস্ট্রেলিয়ান।

ক্যারিয়ারের শুরুতে মিডল অর্ডারে খেললেও বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ওপেনিংয়েই ব্যাট হাতে নামেন মার্শ। মূলত ব্যাটিং অলরাউন্ডার হলেও পেশাদার ক্যারিয়ারে ৭৯ ম্যাচে ৫৪ উইকেট নেওয়া এ বোলার ভূমিকা রাখতে পারেন বোলার হিসেবেও।

সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ)

ক্রিকেটের ক্ষুদ্রতম দুই সংস্করণ ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে দীর্ঘদিন ধরেই অলরাউন্ডারদের র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষে রয়েছেন সাকিব আল হাসান। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের পর সবগুলো ওয়ানডে বিশ্বকাপেই দলের মূল তারকা ছিলেন সাকিব। আসন্ন বিশ্বকাপেও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না, উপরন্তু এবার তিনি অধিনায়কও।

২০১৯ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপের সর্বশেষ আসরে রীতিমতো অতিমানব ছিলেন সাকিব। ব্যাট হাতে আসরের তৃতীয় সর্বোচ্চ ৬০৬ রান করার পাশাপাশি বোলিংয়েও ১১ উইকেট নিয়েছিলেন এ বাঁহাতি অলরাউন্ডার। দারুণ কিছুর জন্য আসন্ন বিশ্বকাপেও ৩৬ বছর বয়সী এ ক্রিকেটারের দিকেই তাকিয়ে থাকবে টাইগাররা।

রশিদ খান (আফগানিস্তান)

আফগানিস্তানের মতো যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ থেকে উঠে এলেও নিজেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বড় তারকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন রশিদ খান। নিজের ঘূর্ণিজাদুতে ব্যাটারদের পরীক্ষা নেওয়া হোক কিংবা লোয়ার অর্ডারেও বোলারদের তুলোধনা করা- ক্রিকেটে রশিদ খান মানেই এন্টারটেইনমেন্টের নিশ্চয়তা।

আইপিএলে এখন পর্যন্ত ১৩৯টি উইকেট নিয়েছেন রশিদ খান, যার মধ্যে ২৩টিই এসেছে সর্বশেষ আসরে। নিয়মিত আইপিএলে খেলার সুবাদে বিশ্বকাপের আয়োজক ভারতের কন্ডিশন হাতের তালুর মতো চেনেন এ আফগান ক্রিকেটার।  আসন্ন বিশ্বকাপেও আফগানিস্তানের সবচেয়ে বড় ভরসার জায়গা হবেন ২৫ বছর বয়সী অলরাউন্ডারই।

ওয়ানডে সংস্করণে এখন পর্যন্ত ৯৪ ম্যাচে বল হাতে নিয়ে ১৭২ উইকেট নিয়েছেন রশিদ খান। একদিনের ক্রিকেটে দ্রুততর সময় (সবচেয়ে কম ম্যাচ খেলে) ১০০ উইকেট নেওয়ার রেকর্ডেরও মালিকও তিনিই। ক্যারিয়ারে চারটি ফাইফারের (পাঁচ উইকেট শিকার) মালিক রশিদের ইকোনমি মাত্র ৪.২২।

ক্রিস ওকস (ইংল্যান্ড)

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঐতিহ্যবাহী অ্যাশেজ সিরিজে ক্রিস ওকসকে তেমন গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচনা করা হয়নি। তবে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের মাত্র তিনটি টেস্টে মাঠে নেমেই ইংল্যান্ডের সেরা খেলোয়াড় হয়েছিলেন এ বোলিং অলরাউন্ডার।

২০১৯ সালে ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপ শিরোপা জেতাতে ওকস তুলে নিয়েছিলেন ১৬টি উইকেট, যা দলের পক্ষে ছিল তৃতীয় সর্বোচ্চ। লোয়ার অর্ডারে ব্যাটিংয়ে নামলেও ইংলিশ এ ক্রিকেটারের ব্যাট থেকে ১৩৪ রান এসেছিল।

বয়সটা ৩৪ বছর হলেও এখনো ২২ গজে ঘণ্টাপ্রতি ১৪০ কিলোমিটার বেগে বল হাতে আগুন ঝড়ান ওকস। জোফরা আর্চার না থাকায় ভারতে আসন্ন বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের পেস আক্রমণ সামলানোর ভার তাই থাকবে ওকসের ওপরেই।

About

Popular Links