Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পাপন: লিটনকে টেস্ট দলে নেওয়া উচিত হয়নি

প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে লিটনের আউট নিয়ে সমালোচনায় মুখর দেশের ক্রিকেটাঙ্গন

আপডেট : ২৬ মার্চ ২০২৪, ০৭:২১ পিএম

সিলেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে লিটন দাসকে দলে নেওয়া উচিত হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

তিনি বলেন, “লিটন দাসের বিরতি প্রয়োজন।”

প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে লিটনের আউট নিয়ে সমালোচনায় মুখর দেশের ক্রিকেটাঙ্গন। এর আগে, ওয়ানডে সিরিজে পরপর দুই ম্যাচে ডাক মারার পর তৃতীয় ওয়ানডেতে দল থেকে বাদ পড়েন লিটন দাস। তার এমন পারফরম্যান্স নিয়ে  প্রশ্ন উঠেছে।

মঙ্গলবার (২৬ মার্চ) মিরপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

সেখানেই লিটনকে নিয়ে প্রশ্ন করা হয় বিসিবি সভাপতির কাছে। তিনি বলেন, “আপনি যদি আমাকে জিজ্ঞাসা করেন, লিটন টেস্টে না খেললে ভালো হতো। কিন্তু তখন আপনি বলবেন কেন টেস্টে তার এমন রেকর্ড আছে, তাই তাকে বাদ দেওয়া হলো। এটা হবে বিশৃঙ্খলা”

তিনি আরও বলেন, “আমি মনে করি এখনই বিরতি দিলে তাকে ভালোভাবে ফিরতে দেখা যেত।”

ওয়ানডে বিশ্বকাপের পরে অধিনায়ক হওয়ার জন্য অন্যতম দাবিদার ছিলেন লিটন। তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের মেয়াদে নিয়মিত অধিনায়কের অনুপস্থিতিতে সহ-অধিনায়ক হিসেবে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

বিসিবি সভাপতির কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল তাকে অধিনায়কত্ব না দেওয়ার সিদ্ধান্ত কোনো সমস্যা তৈরি করেছে কি না।

পাপন বলেন, “আমি মনে করি না যে এমন ঘটনা ছিল। আমরা গত বিশ্বকাপ থেকে তার পারফরম্যান্স দেখছি। আমরা অনুভব করেছি যে কিছু ভুল আছে। সেজন্য তাকে ওয়ানডে থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল।”

তিনি বলেন, “তার মতো ব্যাটার দলের কাছে কী বোঝায় তা নিয়ে ভাবুন। আমরা তার উপর নির্ভরশীল। সে ভালো পারফর্ম করেছে ও একজন ভালো খেলোয়াড়। কিন্তু কিছু একটা সমস্যা হয়েছে। এজন্য আমরা তাকে ওয়ানডে থেকে বাদ দিয়েছি। এর চেয়ে বড় কিছু হতে পারে না। একটা সমস্যা হয়তো আছে। তবে আমি আত্মবিশ্বাস, এটা অধিনায়কত্বের সাথে সম্পর্কিত নয়।”

ইনজুরির কারণে মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসান না থাকায় লিটনকেও ম্যাচে না নেওয়া হলে একাদশের ভারসাম্য আরও ব্যাহত হতো বলেও মনে করেন পাপন।

বিসিবি সভাপতি বলেন, “তার একটি বিরতি দরকার এবং সে কারণেই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। তাকে বিরতিতে পাঠানো হয়েছিল। সবচেয়ে বড় কারণটি ছিল যেহেতু মুশফিক এবং সাকিব সেখানে ছিলেন না। সবকিছু বিবেচনা করে, তাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।”

প্রথম টেস্টের দুই ইনিংসেই টাইগারদের ব্যাটিং প্রদর্শনকেও উড়িয়ে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।

তিনি বলেন, “এটা নিয়ে ভালো লাগার কোনো কারণ নেই। জয় বা পরাজয় তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। কিন্তু সমস্যা হলো তারা কীভাবে খেলেছে। তাদের মানসিকতা, মনোভাব বা শট নির্বাচন জঘন্য ছিল। মনে হয়েছিল হয় তারা এই ফরম্যাটে খেলতে চায় না বা অন্য কিছু সমস্যা ছিল।”

শেষে তিনি বলেন, “এই ধরনের শট নির্বাচন বা মানসিকতা টেস্ট ক্রিকেটের সাথে যায় না। তারা এমন শিশু নয় যাদের হঠাৎ মাঠে নামানো হয়েছে এবং তাদের সবকিছু বলতে হবে। তারা সবাই জানে। এটি আমাদের ক্ষতি করেছে এবং সেই কারণেই আমি এসেছি। এখানে এবং এখানে সবার সাথে একসাথে বসে আছি।”

About

Popular Links