Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফিফার তহবিল থেকে হবে নারী ফুটবলারদের বেতন

ফিফা জানিয়েছে, বাফুফেকে দেওয়া ফিফার বার্ষিক অনুদান থেকে মেয়েদের বেতন দেওয়া যাবে, যেটা আগে দেওয়া যেত না

আপডেট : ০৭ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৫ পিএম

বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়রা এখন থেকে তাদের মাসিক বেতন স্পনসরের টাকার পরিবর্তে ফিফা তহবিল থেকে পাবেন।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমরান হোসেন তুষার বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

উল্লেখ্য, ফিফাই সেই ব্যবস্থা করে দিয়েছে। ফিফা জানিয়েছে, বাফুফেকে দেওয়া ফিফার বার্ষিক অনুদান থেকে মেয়েদের বেতন দেওয়া যাবে, যেটা আগে দেওয়া যেত না।

এমরান হোসেন তুষার বলেন, আমরা ফিফার কাছে ফিফা তহবিল থেকে বেতন দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করার জন্য আবেদন করেছিলাম। যেখানে এটির কাছে কয়েকটি প্রশ্ন ছিল। এখন যেহেতু আমরা ফিফাকে বিষয়টি সম্পর্কে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি, নারী ফুটবলারদের বেতন বার্ষিক তহবিল থেকে দেওয়া হবে। ওই অর্থ আমরা ২০২৪ সালের এপ্রিল থেকে ফিফার কাছ থেকে পাচ্ছি।”

চুক্তি অনুযায়ী জাতীয় দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনসহ ১৫ ফুটবলার মাসে পেয়েছেন ৫০ হাজার টাকা করে। ১০ জন ৩০ হাজার টাকা করে, ৪ জন ২০ হাজার ও ২ জনের বেতন ছিল ১৮ হাজার টাকা করে। সব মিলিয়ে বেতনের অঙ্ক ছিল মাসে ১১ লাখ টাকার কিছু বেশি।

এসব অর্থ এতদিন পৃষ্ঠপোষকদের অর্থ থেকে দিয়ে আসছিল বাফুফে। তবে অপর্যাপ্ত, অনিয়মিত হওয়ার কারণে বেতন প্রায়ই বকেয়া পড়তো।

তবে এখন তহবিল সুরক্ষিত হওয়ায় খেলোয়াড়রা নিয়মিত অর্থ পাবেন তার নিশ্চয়তা রয়েছে।

এমরান দাবি করেছেন, ফিফা তহবিলে খেলোয়াড়দের বেতন দিতে জন্য বাজেটে কয়েকটি প্রকল্প সরিয়ে ফেলতে হয়েছিল, যার মূল্য প্রায় ১০ কোটি টাকা।

২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে প্রথমবার সাফ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর থেকেই বেতনসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর দাবি জানিয়ে আসছিলেন বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের সদস্যরা। এত দিন আর্থিক সংকটের কারণ দেখিয়ে সেই দাবি পূরণ করেনি বাফুফে।

এর মধ্যে বেতনের দাবি তুলে মেয়েরা অনুশীলনও বর্জন করেছিলেন। পরে নারী ফুটবলারদের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণে শীর্ষ পর্যায়ের ৩১ ফুটবলারের সঙ্গে গত বছরের ১৬ আগস্ট চুক্তি করে বাফুফে। চুক্তির মেয়াদ ছিল ৬ মাস, যা কার্যকর হয় গত বছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে।

গত মাসে সেই চুক্তি শেষ হয়েছে। এখন আবার খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করে নতুন চুক্তি করা হবে। নতুন চুক্তিতে খেলোয়াড়ের সংখ্যা হতে পারে ৩৪-৩৫ জন। তবে টাকার অঙ্ক আগের মতোই থাকার সম্ভাবনা বেশি।

About

Popular Links