Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

টাইব্রেকারে ধরাশায়ী স্পেন : শেষ আটে রাশিয়া

অনিশ্চয়তা আর চমকপূর্ণ বিশ্বকাপে ফেভারিট দলগুলোর মহাপ্রয়াণে আর্জেন্টিনা আর পর্তুগালের পথে হাঁটা দিলো ২০১০ চ্যাম্পিয়ান স্পেন। নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলে সমতায় শেষ হওয়া ম্যাচ অতিরিক্ত সময়েও অমীমাংসিত থাকায় টাইব্রেকারে পৌঁছে ৪-৩ ব্যবধানে ঘরের মাঠে জয় ছিনিয়ে নেয় স্বাগতিক রাশিয়া। আর তাতে জোড়া শট রুখে দিয়ে জয়ের নায়ক রাশান গোলরক্ষক ইগর আকিনফিভ।

আপডেট : ০২ জুলাই ২০১৮, ১১:০৭ এএম

অনিশ্চয়তা আর চমকপূর্ণ বিশ্বকাপে ফেভারিট দলগুলোর মহাপ্রয়াণে আর্জেন্টিনা আর পর্তুগালের পথে হাঁটা দিলো ২০১০ চ্যাম্পিয়ান স্পেন। নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলে সমতায় শেষ হওয়া ম্যাচ অতিরিক্ত সময়েও অমীমাংসিত থাকায় টাইব্রেকারে পৌঁছে ৪-৩ ব্যবধানে ঘরের মাঠে জয় ছিনিয়ে নেয় স্বাগতিক রাশিয়া। আর তাতে জোড়া শট রুখে দিয়ে জয়ের নায়ক রাশান গোলরক্ষক ইগর আকিনফিভ।

ইনিয়েস্তা-পিকে-রামোস’রা পুরো ম্যাচে প্রায় হাজারটা ‘বল পাসিং’ আর ৭৪% বল নিয়ন্ত্রন করেও শেষ রক্ষা হয়নি তাদের। রাশিয়ার রক্ষণভাগ চিড়ে গোলমুখে ত্রাস তৈরী করতে দেখা যায়নি খুব একটা। গতি বাড়িয়ে প্রতিপক্ষকে চাপে রাখবার কোনো প্রবণতাও ছিলো না কোচ হিয়েরো শিষ্যদের। 

মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে ম্যাচের ১২তম মিনিটেই কর্নার কিক থেকে আসা বল রামোসের পায়েই গোলের মুখ দেখতে পারতো। তবে রাশিয়ান ডিফেন্সের পায়ে লেগেই সে গোল ‘আত্মঘাতী’র তকমা পায়।

পিছিয়ে পড়লেও লাগাতার চেষ্টা করতে থাকা রাশিয়া ৪১ মিনিটে জেরার্ড পিকের কল্যাণে পেনাল্টি থেকে সমতায় ফিরেই প্রথমার্ধ্ব শেষ করে। ডি-বক্সে প্রতিপক্ষের হেডার থেকে আসা বল তার হাতে লাগলে হলুদ কার্ডও দেখেছেন এই বার্সা ডিফেন্ডার। রাশিয়ার পক্ষে শ্যুট করেছেন জিউবা।

বিরতী থেকে ফিরে এসে রাশিয়ার উপর চড়াও হবার চেষ্টা করেও কোনো ফলাফল পায়নি স্প্যানিয়ার্ডরা। ৬৭ মিনিটে ভেটেরান আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা মাঠে নামলে খেলায় নতুন করে প্রাণ সঞ্চার ঘটে। ৮৫ মিনিটে দারুণ এক লং শটে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিতে চেয়েছিলেন ইনিয়েস্তা, তবে ইগর আকিনফিভের দূর্দান্ত সেভে সে আশায় গুড়ে বালি হয়েছে স্পেনের।

নির্ধারিত সময় আর অতিরিক্ত সময়ে আর কোনো গোলের দেখা না মিললে ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দেয় টাইব্রেকার। 

ইনিয়েস্তার-পিকে-রামোসদের নিপুণ স্পটকিকে অভিজ্ঞতার ছাপ রেখেছিলো বুল ফাইটাররা। তবে ৩য় ও ৫ম কিকে আকিনফিভের কাছে নতি স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে স্পেন। আর ক্লাব ফুটবলের বিশ্বসেরা গোলরক্ষক ডে গিয়া’র জালে ৪টি শ্যুটের প্রত্যেকটিতেই সফলতা পেয়েছে ফেদর স্মলভ, সের্গেই ইগনাশেভিচ, আলেক্সান্দর গোলোভিন ও দেনিস চেরিশেভ। স্পেনের শট রুখে দেয়ায় ৫ম শ্যুট নেবার আগেই ভাগ্য গড়ে যায় ম্যাচের।  

১৯৬৬ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের পর প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছালো আয়োজক রাশিয়া। ঘরের মাঠে থেকে কি তবে কাপ হাতছাড়া করতে নারাজ তারা?


About

Popular Links