Saturday, June 15, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সুপার ওভারে পাকিস্তানকে হারাল যুক্তরাষ্ট্র

সুপার ওভারে আমিরের এলোমেলো বোলিং আর আলগা ফিল্ডিংয়ে মোট ১৮ রান পেয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট : ০৮ জুন ২০২৪, ০৬:৪৭ পিএম

কে জানত পাকিস্তান-যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাচ যাবে সুপার ওভারে। আর তাতে পাকিস্তানকে হারিয়ে দেবে যুক্তরাষ্ট্র! প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলার উপলক্ষ দারুণ জয়ে রাঙাল যুক্তরাষ্ট্র। প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পেয়ে প্রথম দুই ম্যাচেই জিতল তারা।

ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) প্রথম ৯ ওভারে মাত্র ৪৬ রান করা পাকিস্তান শেষ পর্যন্ত ১৫৯ রানের পুঁজি গড়তে পারে ৭ উইকেট হারিয়ে। জবাবে ৩ উইকেটে ১৫৯ রানেই থামে যুক্তরাষ্ট্র।

শেষ ওভারে যুক্তরাষ্ট্রের দরকার ছিল ১৫ রান। শেষ বলে জিততে যুক্তরাষ্ট্রের দরকার ছিল ৫ রান। পাকিস্তানের পেসার হারিস রউফের করা সেই বলে স্ট্রাইকে থাকা নীতীশ কুমার চার মারলে ম্যাচ যায় সুপার ওভারে।

যেখানে অ্যারন জোন্স ও হারমিত সিংয়ের সামনে এলোমেলো বোলিং করে ১৮ রান দিয়ে বসেন অভিজ্ঞ মোহাম্মদ আমির। যুক্তরাষ্ট্রের বাঁহাতি পেসার সৌরভ নেত্রভালকারের জন্য এ রান যথেষ্ট ছিল। সুপার ওভারে ১৯ রানের লক্ষ্যে পাকিস্তান ১ উইকেট হারিয়ে করেছে ১৩ রান। পাকিস্তানের পক্ষে সুপার ওভারে ব্যাট করেছেন ইফতেখার আহমেদ, ফখর জামান ও শাদাব খান।

বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে বাংলাদেশকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে চমক দেখায় যুক্তরাষ্ট্র। টেস্ট খেলুড়ে কোনো দেশের বিপক্ষে তাদের প্রথম সিরিজ জয় সেটি। এরপর বিশ্বকাপে প্রথম ম্যাচে কানাডার বিপক্ষে ১৯৫ রানের লক্ষ্য তাড়ায় ৭ উইকেটের দাপুটে জয় তুলে নেয় তারা।

এলোমেলো বোলিং করে ১৮ রান দিয়ে বসেন অভিজ্ঞ মোহাম্মদ আমির/সংগৃহীত

এবার ১৯৯২ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী, ২০০৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন ও গত আসরের রানার্সআপ পাকিস্তানের বিপক্ষে ধরা দিল ঐতিহাসিক জয়। চলতি আসরে প্রথম অঘটনের জন্ম দিল তারাই।

এর আগে টসে জিতে যুক্তরাষ্ট্রের অধিনায়ক মোনাঙ্ক পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান। সুফল পেতেও তার দেরি হয়নি। ২৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বসে পাকিস্তান। তবে শাদাব, বাবর আজমের পর আফ্রিদির সৌজন্যে শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ১৫৯ রান করে পাকিস্তান।

দুইজন মিলে পাকিস্তানকে টেনে তোলেন। দুইজনের ৪৮ বলে ৭২ রানের জুটি পাকিস্তানকে শুরুর ধাক্কা সামলে নিতে সাহায্য করে। তবে এই দুইজনের একজনও শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারেননি। শাদাব ২৫ বলে ৪০ রান করে আউট হন, বাবর ৪৪ রান করেছেন ৪৩ বলে।

এই ইনিংসের সৌজন্যে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির সর্বোচ্চ রানের তালিকায় বিরাট কোহলিকে (৪০৩৮) ছাড়িয়ে যান বাবর (৪০৬৭)। শেষের দিকে আফ্রিদির ১৬ বলে ২৩ রান পাকিস্তানকে নিয়ে যায় দেড় শর ওপারে। যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার নোশতুশ কেনিজিগে, বাঁহাতি পেসার সৌরভ নেত্রভালকারের শিকার ২ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ২০ ওভারে ১৫৯/৭ (রিজওয়ান ৯, বাবর ৪৪, উসমান ৩, ফাখার ১১, শাদাব ৪০, আজম ০, ইফতিখার ১৮, আফ্রিদি ২৩*, রউফ ৩*; কেজিগে ৪-০-৩০-৩, নেত্রাভালকার ৪-০-১৮-২, আলি খান ৪-০-৩০-১, হারমিত ৪-০-৩৪-০, জাসদিপ ৩-০-৩৭-১, অ্যান্ডারসন ১-০-৬-০)

যুক্তরাষ্ট্র: ২০ ওভারে ১৫৯/৩ (টেইলর ১২, মোনাঙ্ক ৫০, হাউস ৩৫, জোন্স ৩৬*, নিতিশ ১৪*; আফ্রিদি ৪-০-৩৩-০, আমির ৪-০-২৫-১, নাসিম ৪-০-২৬-১, রউফ ৪-০-৩৭-১, শাদাব ৩-০-২৭-০, ইফতিখার ১-০-১০-০)

ফল: ম্যাচ টাই ও সুপার ওভারে জয়ী যুক্তরাষ্ট্র

ম্যান অব দা ম্যাচ: মোনাঙ্ক প্যাটেল

About

Popular Links