• শুক্রবার, অক্টোবর ১৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:৪৬ বিকেল

ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ইনিংস ব্যবধানে হারলো বাংলাদেশ

  • প্রকাশিত ০১:২৯ দুপুর জুলাই ৭, ২০১৮
mushfiqur-rahim-of-bangladesh-is-bowled-by-shannon-gabriel-1530948372947.jpg
মুশফিকের বোল্ডের মতই হতাশায় ভুগলো বাংলাদেশ দল। ছবি: এএফপি

অ্যান্টিগা টেস্টে বাংলাদেশকে ইনিংস ব্যবধানে ও ২১৯ রানে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

অ্যান্টিগা টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ইনিংস ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। গতকাল স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ২১৯ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। দুই ম্যাচের সিরিজে ১-০তে এগিয়ে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

দেশের মাটিতে ক্যারিবিয়ানদের এটি সবচেয়ে বড় জয়। এর আগে সেই ১৯৫৮ সালে জ্যামাইকায় পাকিস্তানকে ইনিংস ব্যবধানে ও ১৭৪ রানে হারানো ছিল আগের রেকর্ড।

একশর নিচে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কায় শুক্রবার দিন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। তবে কিছুটা আশা মান রেখেছে সোহানের একক ফিফটি। শেষ ইনিংস ঠেকলো ১৪৪ রানে। 

দুই ইনিংস মিলিয়ে বাংলাদেশ মাত্র ১৮৭ রান করেছে । এই প্রথম এক টেস্টে সব মিলিয়ে ২০০  রানের নিচে গুটিয়ে গেল বাংলাদেশ। দুই ইনিংস মিলিয়ে বিগত সর্বনিম্ন ছিল এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই। সেই রেকর্ড ছিল ঢাকায় ২২৬ (১৩৯ ও ৮৭)।

বাংলাদেশের দিনটা শুরু হয়েছিল ৬ উইকেটে ৬২ রান নিয়ে। শুরুটা ভালো হলো না। প্রথম বলেই আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ।

অনেক আগেই বাংলাদেশের ম্যাচ গুঁটিয়ে যেত। কিন্তু কিছুটা পথ এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন নুরুল ইসলাম। ক্যারিবিয়ানদের আরও কিছু সময় ধরে মাঠে আটকে রেখেছেন তিনি। 

বাংলাদেশের প্রাপ্তি বলতে শুধু সোহানের একক ফিফটি। রুবেল হোসেনের সঙ্গে সোহান গড়েন ৫৫ রানের জুটি। ৩৬ বলে সোহান স্পর্শ করেন পঞ্চাশ, দেশের বাইরে যা বাংলাদেশের দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড। ৬ চার ও ২ ছক্কায় সোহান ফিরেছেন ৭৪ বলে ৬৪ রানে।

দ্বিতীয় টেস্ট আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শুরু জ্যামাইকায়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৪৩  

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ৪০৬

বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: ৪০.২ ওভারে ১৪৪ (আগের দিন ৬২/৬) (তামিম ১৩, লিটন ২, মুমিনুল ০, মুশফিক ৮, সাকিব ১২, মাহমুদউল্লাহ ১৫, মিরাজ ২, সোহান ৬৪, রুবেল ১৬, আবু জায়েদ ০*; গ্যাব্রিয়েল ৫/৭৭, হোল্ডার ৩/৩০, কামিন্স ২/১৬, বিশু ০/১৬, চেইস ০/৪)।

ফল: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ইনিংস ও ২১৯ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: কেমার রোচ