• শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫২ রাত

রেফারির ভাষ্যে ‘জিদান ও লাল কার্ড’

  • প্রকাশিত ১১:৫৭ রাত জুলাই ১৯, ২০১৮
frances-zinedine-zidane-d-008-1532022854635.jpg
সাবেক ফরাসি ফুটবলার জিনেদিন জিদান। ছবি: ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত

লাল কার্ড পেয়ে বিশ্বকাপ শিরোপার পাশ দিয়ে জিদানের আস্তে আস্তে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার ঘটনাটি, এখনও ভুলতে পারেননি অসংখ্য ফুটবল ভক্ত।

বিশ্বকাপ আসরের গল্প বলে শেষ করা কঠিন। কোনো গল্প যেমন অনুপ্রেরণা দেয়, ঠিক তেমনিই কোনো গল্প আবার বেদনা জাগায়। তবে এখন পর্যন্ত, ঘটনার দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে ২০০৬ বিশ্বকাপ আসরের জিদানের ঘটনাটি। লাল কার্ড পেয়ে বিশ্বকাপ শিরোপার পাশ দিয়ে জিদানের আস্তে আস্তে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার ঘটনাটি, এখনও ভুলতে পারেননি অসংখ্য ফুটবল ভক্ত।

জিদানকে লাল কার্ড দেখিয়েছিলেন রেফারি হোরাসিও এলিজোন্দো। ২০০৬ বিশ্বকাপ ইতিহাসের ফাইনালে ইতালিয়ান ডিফেন্ডার মার্কো মাতেরাজ্জিকে মাথা দিয়ে আঘাত করেছিলেন জিনেদিন জিদান। এর জন্য ওই রেফারিকে অপরাধীর কাঠগড়ায় দাঁড় করায় না কেউ। তবে, অনেকেরই অজানা স্বচক্ষে ওই ঘটনাটি দেখেননি এলিজোন্দো।

এলিজোন্দোর ভাষ্যে, তাকে সে সময় দায়িত্ব পালনে সহযোগিতা করেছিলেন চতুর্থ রেফারি লুইস মেদিনা কান্তালেহার। চার দায়িত্বপ্রাপ্ত রেফারির মধ্যে শুধু এই স্প্যানিশ রেফারিই নাকি ঘটনাটি স্বচক্ষে দেখেছিলেন। 

এ প্রসঙ্গে এলিজেন্দো বলেন, “আমি দেখলাম মাতেরাজ্জি ৩০ থেকে ৪০ মিটার দূরত্বে মাটিতে শুয়ে আছেন। তাই, আমি খেলা থামালাম। নিজেকেই জিজ্ঞাসা করছিলাম, কী হতে পারে? ইন্টারকমে সহকারীদের জিজ্ঞাসা করেছিলাম, কী ঘটেছে? বিস্ময়কর ব্যাপার, দু’জনেই জবাব দিলেন, তারা কিছু দেখেননি। আমি তখন চিন্তা করছি, বিশাল ঝামেলায় পড়তে যাচ্ছি। ঠিক সে সময় আমাকে রক্ষা করলেন চতুর্থ রেফারি লুইস মোদিনা কান্তালেহো। সে জানালো, মাতেরেজ্জিকে ভয়ংকরভাবে গুঁতো দিয়েছে জিদান।”

এলিজেন্দো আরও বলেন, “আমি তাই ঘটনাস্থলে গেলাম। সব দরকারি তথ্যই ছিল আমার কাছে। আমি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললাম মাঠ থেকে বের হয়ে যেতে বলব জিদানকে।” 

উল্লেখ্য, এলিজেন্দোর ওই সিদ্ধান্তের পর ম্যাচ পেনাল্টি শুট আউটে গিয়েছিল এবং সেখানে ইতালির কাছে হারে ফ্রান্স। তবে অনেকের ধারণা, জিদান মাঠে থাকলে উল্টোটিই ঘটত।