• বুধবার, আগস্ট ১২, ২০২০
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৩:০৭ বিকেল

ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে ৫ উইকেটে জয় টাইগারদের

  • প্রকাশিত ১২:৫৬ দুপুর ডিসেম্বর ৯, ২০১৮
মুশফিকুর রহিম
মুশফিকুর রহিম। ফাইল ছবি।মো. মানিক/ঢাকা ট্রিবিউন

ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের ১ম ওয়ানডে ম্যাচে ১৯৬ রানের সহজ টার্গেট তাড়া করে ৫ উইকেট আর ৮৯ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছেছে টিম বাংলাদেশ

৮৯ বল আর ৫ উইকেট হাতে রেখেই সিরিজের ১ম ম্যাচে জয়ের বন্দরে ভিড়েছে টাইগারদের ইনিংস। 

এই জয়ে সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে গেলো ক্যাপ্টেন মাশরাফির বাংলাদেশ।

শেষ পর্যন্ত মুশফিক ৫৫ রানে আর ১৪ রানে অপরাজিত ছিলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।

জয়ের অপেক্ষায় টাইগাররা

জয়ের বন্দরে তাক করে হাল ধরে আছেন মুশফিক। তুলে নিয়েছেন হাফ-সেঞ্চুরি। সাথে আছেন ১২ বলে ১৬ রান করা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। 

তার আগে, রোস্টন চেজের বলে পাওয়েলের ক্যাচ হয়ে প্যাভিলিওনে সৌম্য সরকার। ১৩ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ১৯ রানের ছোট্ট ক্যামিও এই স্থান পরিবর্তিত ওপেনারের।  

জয়ের বন্দরে ভেরার আগেই ফিরলেন সাকিব

৪৭ রান যোগ করে ভাঙলো লিটন-মুশফিক জুটি। ১৯ তম ওভারে দলীয় ৮৯ রানে পলের বলে সাজঘরের পথ দেখেন লিটন। এরপর মুশফিকের নতুন সহযোদ্ধা হোন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব। রানের চাকায় গতিসঞ্চার করে এই পার্টনারশিপে ৪৭ বলে ৫৭ রান তুলে ফেরেন সাকিব। ২৬ বলে ৩০ রানে পাওয়েল এর বলে কট-বিহাইন্ড হয়েছেন সাকিব।

ক্যারিবিয়দের দেয়া সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করছে টাইগাররা

১৯৬ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালই করেছিলেন টাইগার ওপেনার তামিম-লিটন। তবে চেজের করা ৮ম ওভারের শেষ বলে দুর্বল শটে দেবেন্দ্র বিষুর তালুবন্দী হোন তামিম ইকবাল।তিন বল পরেই থমাসের বলে বোল্ড হয়ে মাত্র ৪ রান করেই বিদায় নেন নম্বর তিনে নামা ইমরুল কায়েস।

এর আগে, কেমার রোচের বলে 'আউট' হয়েও নো-বলের কারণে লাইফ পান লিটন দাস। ৩৫ বল খেলে ২০ রানে লিটন দাস ও ৭ বলে ৩ রানে থেকে ব্যাট করছেন মুশফিকুর রহিম। ১১ ওভার শেষে ২ উইকেট হারিয়ে টাইগারদের সংগ্রহ ৫০ রান। 

শেষ বেলায় রঙ ছড়ালেন মুস্তাফিজ

খাদের কিনার থেকে দলকে টেনে তুলছিলেন চেজ-পল জুটি। ১২৭ রানে ৬ষ্ট উইকেট খুঁইয়ে মাত্র ৪৮ বলে গড়েন ইনিংসের সর্বোচ্চ ৫১ রানের পার্টনারশিপ। তবে নড়াইল এক্সপ্রেসের তুরুপের তাস মুস্তাফিজ এসে চুকিয়ে দেন শেষ হিসাব। ৪৮ তম ওভারে ৩৮ বলে ৩২ রান করা রোস্টন চেজকে সাজঘরে পাঠান এই কাটার মাস্টার। 

ম্যাচের শেষ ওভারে ফিরে আবারও জোড়া আঘাত হানেন তিনি। ওভারের ২য় বলে আগের ওভারে ছক্কা হাকানো কিমো পলকে আবারও সেই মিরাজের হাতে বন্দী করেন। ১ বল পরেই দেবেন্দ্র বিষুকে কট অ্যান্ড বোল্ড করে 'গোল্ডেন ডাক'এ পরিণত করেন মুস্তাফিজ। ৫০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৯৫ রানে থামে সফরকারীদের ইনিংস।   

৬ষ্ট উইকেটের পতন

উইকেট উৎসবে যোগ দিলেন রুবেল হাসানও। দলের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যাটসম্যান মারলন স্যামুয়েলসকে ২৫ রানে লিটন দাসের ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। 

মাশরাফির শিকার ৩ উইকেট

ক্যারিয়ারের ২০০ তম ম্যাচেও বোলিংয়ের ক্ষুরধারে প্রতিপক্ষকে কুপোকাত করছেন মাশরাফি। ম্যাচে নিজের ৩য় শিকার হিসেবে ফেরালেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েলকে। ৩৬.১ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১১৯ রানে ব্যাট করছে সফরকারীরা।

শতকের আগেই নেই ৪ উইকেট

ম্যাচের শুরু থেকেই ছন্দময় বোলিংয়ে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানদের অস্বস্তিতে ফেলে টাইগাররা। রানের চাকায় নিয়ন্ত্রণ ধরে রেখেছিলো বাংলাদেশ। ফলশ্রুতিতে সাকিবের করা ৮ম ওভারে ওপেনার কিরেন পাওয়েল ধরা পরেন রুবেলের হাতে। দলীয় ২৯ রানে ১ম উইকেট হারালেও ড্যারেন ব্রাভোকে নিয়ে চাপ সামলে নেন আরেক ওপেনার উইকেট কিপার-ব্যাটসম্যান সাই হোপ। 

তবে ৩৬ রানের পার্টনারশিপ ভাঙেন টাইগার অধিনায়ক। ২১ তম ওভারে তামিম ইকবালের দৃষ্টিনন্দন ক্যাচে ব্রাভোকে ফেরান ব্যক্তিগত ১৯ রানে। তিন ওভার পরেই নিজের ২য় শিকার হিসেবে সাই হোপকে ফেরান মাশরাফি। মিরাজের তালুবন্দী হওয়ার আগে ৫৯ বলে ৩ চারের মারে ৪৩ রান সংগ্রহ করেন এই ক্যারিবিয়ান।

চলতি সফরে টেস্ট সিরিজের ২ ম্যাচে ৪ ইনিংসের পর আজ ১ম ওয়ানডেতেও হেটমায়ারকে ঘূর্ণির ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরালেন মিরাজ। ২৯ তম ওভারের ১ম বলেই ব্যক্তিগত ৬ রানে বোল্ডআউট হোন এই ব্যাটসম্যান। শতক পেরুনোর আগেই দলীয় ৪ উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে সফরকারীরা। 

এর আগে, মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টস জিতে শুরুতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

আজকের ওয়ানডেতে বাংলাদেশ দলে পাঁচ পরিবর্তন আনা হয়েছে। দলে মোহাম্মদ মিঠুন, সাইফুদ্দিন, নাজমুল ইসলাম, আবু হায়দার রনি ও আরিফুল হকের পরিবর্তে খেলছেন তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, মুস্তাফিজুর রহমান, ,এহেদেঈ হাসান মিরাজ ও রুবেল হোসেন।

এর আগে টেস্ট সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইট ওয়াশ করে বাংলাদেশ। টাইগাররা আশা করছেন ওয়ানডেতেও সেই সাফল্য ধরে রাখতে। 

বাংলাদেশ একাদশ: মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ: কিয়েরন পাওয়েল, শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), ড্যারেন ব্রাভো, মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমায়ার, রোভম্যান পাওয়েল (অধিনায়ক), রোস্টন চেজ, কিমো পল, দেবেন্দ্র বিশু, কেমার রোচ ও ওশানে থমাস। 

51
50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail