• শনিবার, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৫ দুপুর

ভারত বধে আত্মবিশ্বাসী টাইগাররা

  • প্রকাশিত ১০:৩৮ সকাল জুলাই ২, ২০১৯
সাকিব আল হাসান
বার্মিংহামে অনুশীলনে সাকিব আল হাসান। ইংল্যান্ড থেকে মো. মানিক

সেমিফাইনালের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে এই ম্যাচে জয়ের কোনো বিকল্প নেই টাইগারদের সামনে

ভারতের বিপক্ষে মঙ্গলবার এজবাস্টনে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। টাইগারদের জন্য এই ম্যাচটি বাঁচা মরার লড়াই। সেমিফাইনালের দৌড়ে টিকে থাকতে হলে এই ম্যাচে জয়ের কোনো বিকল্প নেই টাইগারদের সামনে।    

সেমিফাইনালের স্বপ্ন জিইয়ে রাখার জন্য মাশরাফিদের জন্য হিসেবটা খুব সহজ- জিততে হবে ভারত ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গ্রুপ পর্বের শেষ দুই ম্যাচে।

বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত ৭ খেলায় টাইগারদের পয়েন্ট ৭; নেট রান রেট -০.১৩৩।


এখনো সেমিফাইনালে পৌঁছানোর নানা সমীকরণ টাইগারদের সামনে থাকলেও ভারতকে হারাতে হবে সবার আগে। ভারতের বিপক্ষে এই ম্যাচে পরাজিত হলে টাইগারদের বিশ্বকাপ অভিযান এখানেই শেষ হবে। পাকিস্তানের সাথে ১টি ম্যাচ বাকি থাকলেও সেমিফাইনালের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাবে।

তবে, ভারতের বিপক্ষে নিজেদের সেরা খেলাটা খেলার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী সাকিব-তামিমরা। টাইগার দলপতি মাশরাফিও বলেছেন, ভারতের বিপক্ষে জিততে হলে ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং প্রতিটি বিভাগেই নিখুঁত হতে হবে।

এই মাঠেই রবিবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৩৮ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ৩১ রানে হেরেছে ভারত। এজবাস্টনের উইকেট ব্যাটিং সহায়ক হওয়ায় একটি হাইস্কোরিং ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই মাঠটির একদিকের সীমানা বেশ ছোট, মাত্র ৫৯-৬০ মিটার।


সেক্ষেত্রে আগেও এই পিচে এক ম্যাচ খেলায় ভারত বাংলাদেশের থেকে কিছুটা এগিয়ে থাকবে কিনা জিজ্ঞেস করলে ক্যাপ্টেন মাশরাফি বলেন, ছোট বাউন্ডারিতে দুই দলই খেলবে, কাজেই সেখান থেকে দুই দলই সুবিধা পাবে।

ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, "দুই দলই একই উইকেট এবং একই বাউন্ডারিতে খেলবে। তাই এই ব্যাপারে আমি কিছু বলতে চাই না কারণ আমরা এখানে কোনো ম্যাচ খেলিনি এখনও। তবে, হ্যাঁ মাঠের এক দিকের সীমানা ছোট। কাজেই ব্যাটসম্যানরা সেদিকে টার্গেট করেই খেলতে চাইবে এটাই স্বাভাবিক। তবে আমি মনে করি দুই দলই সমান সুবিধা পাবে।"    

গত ২৪ জুন আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ মাঠে নেমেছিল টাইগাররা। ওই ম্যাচের পর ৪ দিনের ছুটি পেয়েছিলেন মাশরাফিরা। ৫ দিন পর রবিবার অনুশীলনে নামে বাংলাদেশ। সোমবারও এজবাস্টনে ঐচ্ছিক অনুশীলন করেছেন প্রায় সবাই। একমাত্র তামিম সোমবার অনুশীলনে অংশ নেননি।

এদিকে অভিজ্ঞ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের চোট নিয়ে চিন্তায় রয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। আফগানিস্তানের বিপক্ষে খেলার সময় চোট পেয়েছিলেন তিনি।


সোমবার নেটে অনেক্ষণ ব্যাটিং করেছেন মাহমুদুল্লাহ। ব্যাট হাতে তাকে বেশ সাবলীলই মনে হয়েছে। তবে, ফিল্ডিং করার সময় এখনও অস্বস্তি বোধ করছেন এই ফিনিশার। তার ব্যাপারে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর আগে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে টিম ম্যানেজমেন্ট। 

যদি মাহমুদুল্লাহকে না পাওয়া যায় তাহলে তা জায়গায় দলে ঢুকতে পারেন সাব্বির রহমান কিংবা মোহাম্মদ মিঠুন। 

মঙ্গলবার বার্মিংহামের আবহাওয়া আংশিক মেঘলা থাকলেও বৃষ্টির সম্ভাবনা কম।