• শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:৫৫ দুপুর

ফাইনালের টিকিট কালোবাজারি করছে ভারতীয়রা!

  • প্রকাশিত ০৭:৫৪ রাত জুলাই ১৩, ২০১৯
টিকিট কালোবাজারি
আইসিসি'র অনুমোদনহীন সাইটে ২৯৫ পাউন্ডের টিকিট ১৬,৫৮৪ পাউন্ডে বিক্রি হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত

ফাইনালে ভারত খেলবে এমন আশায় মোট টিকিটের ৫০ শতাংশেরও বেশি ভারত সমর্থকরা আগে থেকেই কিনে রাখায় ফাইনালের টিকিটের জন্য রীতিমতো হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড সমর্থকদের মধ্যে

রবিবার ঐতিহাসিক লর্ডসে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালের টিকিট কালোবাজারে লাখ লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ইএসপিএন জানায়, আইসিসির অনুমোদনহীন একটি টিকিট পুনর্বিক্রয়ের একটি সাইট 'স্টাবহাবে' ২৯৫ পাউন্ডের একটি টিকিটের দাম ১৬ হাজার ৫৮৪ পাউন্ড ধরা হয়েছে। বাংলাদেশি টাকায় এই মূল্য দাঁড়ায় প্রায় ১৭ লাখ টাকা।

এদিকে অননুমোদিত সাইট থেকে পুনর্বিক্রিত টিকিট বাতিল করা হবে বলে সতর্ক করেছে আইসিসি। তবে, তারপরও থামানো যাচ্ছে না কালোবাজারে ফাইনালের টিকিট বিক্রি।

প্রসঙ্গত, ফাইনালে ভারত খেলবে এমন আশায় মোট টিকিটের ৫০ শতাংশেরও বেশি ভারত সমর্থকরা আগে থেকেই কিনে রাখায় ফাইনালের টিকিটের জন্য রীতিমতো হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড সমর্থকদের মধ্যে। এই সুযোগে আইসিসি'র সতর্কতার পরও কালোবাজারে ৫০ গুণ বেশি দামে টিকিট বিক্রির অভিযোগ উঠেছে ভারতের সমর্থকদের বিরুদ্ধে।


আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ ফাইনালের অধিকাংশ টিকিট কিনে রেখেছেন ভারত সমর্থকরা


উল্লেখ্য, টিকিট পুনর্বিক্রয়ের জন্য আইসিসির নির্দিষ্ট প্লাটফর্ম রয়েছে। এই প্লাটফর্মের বাইরে কোনো সাইট থেকে পুনর্বিক্রিত টিকিট বাতিল করে থাকে আইসিসি।

তবে ইএসপিএনের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, অনুমোদনবিহীন বিভিন্ন সাইটে ফাইনালে লর্ডসের কম্পটন স্ট্যান্ডের একটি টিকিটের দাম ধরা হয়েছে ১৬,৫৮৪ পাউন্ড যা মূল দামের ৫০ গুণ বেশি। অন্যদিকে অন্যান্য প্যাকেজগুলি ৩ থেকে ৪ হাজার পাউন্ডে বিক্রি হচ্ছে। এক্ষেত্রে আইসিসি'র নিয়মের তোয়াক্কা করা হচ্ছে না।

এ প্রসঙ্গে আইসিসি'র বিশ্বকাপ ক্রিকেট ক্যাম্পেইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টিভ এলোয়ার্দি বলেন, "অনেক কিছু চিন্তা করে, অনেকগুলো বিষয় বিবেচনা করে বিশ্বকাপের টিকিটের দাম নির্ধারণ এবং বণ্টন করা হয়েছে। এর উদ্দেশ্য, যেন সত্যিকারের ক্রিকেটপ্রেমীরাই বিশ্বকাপের গ্যালারি মাতাতে পারেন। তাদের সুবিধার্তে আয়ত্তের মধ্যে রাখা হয়েছে বিশ্বেকাপের টিকিটের দাম।"

এটা খুবই হতাশাজনক যে অননুমোদিত বিভিন্ন সাইটে বহুগুণ বেশি দামে ফাইনালের টিকিট বিক্রি হচ্ছে। তবে, ইংল্যান্ডের সংবিধানে এবিষয়ক আইনে সীমাবদ্ধতা থাকায় আমরা তেমন কিছু করতে পারছি না। এটাই হতাশাব্যঞ্জক। ফলে বেশি দফাম দিতে বাধ্য হচ্ছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। তবে, অননুমোদিত সাইট থেকে বিক্রি হওয়া টিকিট পেলেই আমরা তা বাতিল করবো"।

এদিকে টিকিটের এই হাহাকারের খবরে সমর্থকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটার জিমি নিশাম। নিউজিল্যান্ডের সমর্থকদের কাছে ন্যায্যমূল্যে টিকিট বিক্রির জন্য ফাইনালের টিকিট কিনে রাখা ভারতের সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।


নিজের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক টুইটে নিশাম লিখেছেন, "প্রিয় ভারতীয় ক্রিকেট ভক্তেরা, যদি আপনারা ফাইনালে আর আসতে না চান, দয়া করে আইসিসির নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনাদের টিকিটগুলো বিক্রি করে দিন। আমি জানি বড় অঙ্কের লাভ করার লোভ আছে। কিন্তু দয়া করে কেবল ধনীদের নয়, প্রকৃত ক্রিকেট সমর্থকদের ফাইনাল দেখার সুযোগ করে দিন।"