• বুধবার, নভেম্বর ১৩, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:৩০ রাত

যে ১১ দফা দাবিতে ক্রিকেটারদের ধর্মঘট

  • প্রকাশিত ০৬:৫৭ সন্ধ্যা অক্টোবর ২১, ২০১৯
বিসিবি
মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে সোমবার বিসিবির কাছে ১১ দফা দাবি তুলে ধরা হয়। এমডি মানিক/ঢাকা ট্রিবিউন

দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত ক্রিকেট সংক্রান্ত সব কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় 

১১ দফা দাবিতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে নেমেছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। সোমবার (২১ অক্টোবর) দুপুরে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কাছে দাবিগুলো তুলে ধরা হয়। 

দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত ক্রিকেট সংক্রান্ত সব কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

১১ দফা দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে

১. ক্রিকেটার ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) বর্তমান কমিটির সদস্যদের পদত্যাগ করতে হবে। প্রিমিয়ার লিগে ক্রিকেটারদের দলবদল পুরোনো পদ্ধতিতে করতে হবে, যাতে তারা নিজেদের পছন্দমতো দল নির্বাচন করতে পারে।  

২. বিপিএলের চলতি আসরে সম্ভব না হলেও, আগামী আসর থেকে আগের নিয়মে ফিরে যেতে হবে। পাশাপাশি এই আয়োজনে দেশি ক্রিকেটারদের বেতন বৃদ্ধি করতে হবে।

৩. প্রথম শ্রেণির ম্যাচে ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি ১ লাখ টাকা করতে হবে। এছাড়া সব ডিভিশনে কোচ ও ফিজিওদের বছরব্যাপী অনুশীলনের সুবিধা থাকতে হবে। 

৪. আন্তর্জাতিক ম্যাচে ব্যবহৃত বল ঘরোয়া ম্যাচেও ব্যবহার করতে হবে। ক্রিকেটারদের দৈনিক ভাতা ১ হাজার ৫০০ টাকা থেকে বাড়াতে হবে। বিভাগভিত্তিক যাতায়াতের জন্য বিমান ভ্রমণের ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি যে হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হবে সেখানে জিম এবং সুইমিং পুল সুবিধা থাকতে হবে। 

৫. চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের সংখ্যা এবং তাদের বেতন বাড়াতে হবে। 

৬. স্থানীয় স্টাফ, কোচ, গ্রাউন্ড স্টাফ, আম্পায়ারসহ অন্যান্যদের বেতন বাড়াতে হবে।  

৭. ঘরোয়া ক্রিকেটে ওয়ান-ডে টুর্নামেন্টের সংখ্যা বাড়াতে হবে। এছাড়া বিপিএল'এর আগে আরও একটি টি-২০ টুর্নামেন্ট খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ক্রিকেটাররা।  

৮. ঘরোয়া আসরের ক্ষেত্রে ফিক্সড ক্যালেন্ডার থাকতে হবে।

৯. ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) বকেয়া অর্থ সময়ের মধ্যে খেলোয়াড়দের পরিশোধ করতে হবে। 

১০. দুটির বেশি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে না খেলার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে। 

১১. একসঙ্গে দেশে ক্রিকেটের পরিবেশ উন্নত করতে নারী ক্রিকেটারদেরও তাদের সমস্যাগুলো সামনে আনার আহ্বান জানানো হয়েছে।