• রবিবার, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩২ রাত

রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ হচ্ছে টুইটারে

  • প্রকাশিত ০১:০৬ দুপুর অক্টোবর ৩১, ২০১৯
টুইটার

প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডরসি এক টুইট-বার্তায় বলেন, ‘নিষেধাজ্ঞার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে সহজেই যেন কেউ কোনও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়াতে না পারে। এজন্য আমরা আমাদের সিস্টেমগুলোকে নতুন করে আপডেট করছি।’

সবধরনের রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করার ঘোষণা দিয়েছে টুইটার। 

বৃহস্পতিবার (৩১ অক্টোবর) সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডরসি এক টুইট-বার্তায় বলেন, ইন্টারনেট বিজ্ঞাপন খুবই শক্তিশালী আর এটি ব্যবসায়ীদের জন্য খুবই কাযর্কর। তবে এই শক্তিমত্তাটিই রাজনীতির জন্য ঝুঁকিপূর্ণ।

রয়টার্স এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এই নিষেধাজ্ঞা আগামী ২২ নভেম্বর থেকে কার্যকর করা হবে এবং এর সম্পূর্ণ বিবরণী পাওয়া যাবে আগামী ১৫ নভেম্বর।

ডরসি বলেন, “নিষেধাজ্ঞার অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে সহজেই যাতে কেউ কোনও বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে দিতে না পারে। এজন্য আমরা আমাদের সিস্টেমগুলোকে নতুন করে আপডেট করছি।”

এর আগে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক জানিয়েছিল তারা রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধের পক্ষে নয়। ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ বলেছিলেন, “গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় আমার মনে হয় না বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর কোনও রাজনৈতিক বার্তা নিষিদ্ধ করা উচিত।”

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ম্যানেজার ব্রাড পারস্কেল বলেন, “এটি আসলে ট্রাম্প ও কনজারভেটিভদের কণ্ঠরোধ করার প্রয়াস।”

অন্যদিকে, ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেনের মুখপাত্র বিল রুসো বলেন, ‘‘এটি ভালো খবর যে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ‘টাকা’ জিতছে না।’’