• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

পঞ্চম মৌলিক বলের ধারণা দিলেন হাঙ্গেরির বিজ্ঞানীরা

  • প্রকাশিত ১০:১৭ রাত নভেম্বর ২৫, ২০১৯
a

যদি কণার অস্তিত্ব প্রমাণিত হয়, তবে পদার্থবিদদের পুনরায় একে অন্য চারটি বলের সাথে সামঞ্জস্য পর্যবেক্ষণ করতে হবে

পৃথিবীতে চারটি মৌলিক বল বিদ্যমান, এ তথ্য মোটামুটি সবাই জানে। এগুলোর সাহায্যে পৃথিবীর সমস্ত বস্তুকণা একে অপরকে আকর্ষণ-বিকর্ষণ করে। এ চারটি বল হলো— মহাকর্ষ বল, তড়িৎ চুম্বকীয় বল, সবল ও দূর্বল নিউক্লিও বল।

সম্প্রতি হাঙ্গেরির আণবিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের একদল গবেষক দাবি করেছেন প্রকৃতিতে পঞ্চম মৌলিক বলের অস্তিত্ব বিদ্যমান। ২০১৫ সালের ১৭ এপ্রিল প্রথমবারের মতো তারা অবিশ্বাস্য এই তথ্য উপস্থাপন করেন। 

হাঙ্গেরির ওই বিজ্ঞানীরা জানান, তারা ল্যাবরেটরিতে লিথিয়াম-৭ মৌলিক পদার্থের ওপর তীব্র আলোকরশ্মি ফেলেন। এর ফলে যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয় তাতে বেরেলিয়াম-৮'এর মতো তীব্র উত্তেজক নিউক্লিয়াস উৎপন্ন হয়। এট পরবর্তীতে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সাধারণ বেরেলিয়াম-৮ মৌলিক ধাতুতে পরিণত হয়।

এ ঘটনা প্রমাণ করার জন্য একই গবেষণাগারে পরীক্ষাটি বারবার ঘটানো হয় এবং প্রথমবারের মতো একই ফল পাওয়া যায়। এক বছর পর যুক্তরাষ্ট্রে এ পরীক্ষাটি আবারও চালানো হয় এবং এখানেও একই ফল পাওয়া যায়।

জানা গেছে, কণাটির নাম দেওয়া হতে পারে এক্স ১৭। এর ভর হবে ১৭ মেগা ইলেকট্রন ভোল্ট, যা ইলেকট্রনের চেয়ে ৩২ দশমিক ৭ গুণ ভারি। এমন একটি কণার আবিষ্কার সত্যিই বিস্ময়ের হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার এক গবেষণায় দেখা গেছে, হাঙ্গেরির বিজ্ঞানীদের গবেষণার সঙ্গে অতীতের কোনো গবেষণাই মিল বা অমিল কিছুই নেই। অতএব পদার্থবিজ্ঞানের বর্তমান কোনো সূত্রের সাহায্যেই এটা প্রতিপাদন করা সম্ভব নয়।

যদি কণার অস্তিত্ব প্রমাণিত হয়, তবে পদার্থবিদদের পুনরায় একে অন্য চারটি বলের সাথে সামঞ্জস্য পর্যবেক্ষণ করতে হবে এবং পদার্থবিজ্ঞানে পঞ্চম বলের জন্য স্থান তৈরি করে দিতে হবে।

হাঙ্গেরির গবেষক দল তাদের গবেষণাপত্রের শেষাংশে উল্লেখ করেছেন, "আমরা আশা করছি সামনের বছরগুলোতে এক্স ১৭ নিয়ে আরও গবেষণা হবে এবং স্বতন্ত্র ফলাফল বেরিয়ে আসবে।"