• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০১৯
  • সর্বশেষ আপডেট : ১০:১৮ রাত

কোটি টাকারও বেশি মূল্যের পাঁচটি মোবাইল ফোন!

  • প্রকাশিত ১২:১০ দুপুর নভেম্বর ৩০, ২০১৯
মোবাইল ফোন
ফ্যাল্কন সুপারনোভা আইফোন সিক্স পিংক ডায়মন্ড ফোনের দাম ১১০মিলিয়ন ডলার বা ৯২২কোটি ২১লক্ষ ৮০হাজার টাকা। ছবি: সংগৃহীত

কিছু কিছু ক্ষেত্রে মোবাইল ফোন হয়ে গেছে সম্মান, আভিজাত্য বা মর্যাদার প্রতীক। বিশ্বের অনেক ধনকুবেরের শখ সবচেয়ে ব্যয়বহুল মুঠোফোনগুলো ব্যবহার করা!

আধুনিক যুগে মুঠোফোন ছাড়া মানুষ প্রায় অচল।কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই মুঠোফোন হয়ে গেছে সম্মান, আভিজাত্য বা মর্যাদার প্রতীক। বিশ্বের অনেক ধনকুবেরের শখ সবচেয়ে ব্যয়বহুল মুঠোফোনগুলো ব্যবহার করা! আজকের বিষয় পৃথিবীর সবচেয়ে দামী ৫টি মোবাইল ফোন। তবে, এই মোবাইল ফোনগুলো বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফোন হলেও এর কার্যক্ষমতা সাধারণ ফোনের মতোই।  

১) ফ্যাল্কন সুপারনোভা আইফোন সিক্স পিংক ডায়মন্ড

এই ফোনের দাম ১১০মিলিয়ন ডলার বা ৯২২কোটি ২১লক্ষ ৮০হাজার টাকা। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে দামি এই মোবাইল ফোনটিতে রয়েছে ১৮ ক্যারটের একটি গোলাপি হীরক খণ্ড। ছোটখাটো একটি দেশের জাতীয় বাজেটের সমমূল্যের এই ফোনটি গোল্ড, রোজগোল্ড ও প্লাটিনাম এই ৩টি সংস্করণে পাওয়া যায়। এই ফোনটি তৈরি করেছে আমেরিকান অভিজাত পণ্য তৈরি করার কোম্পানি ফ্যালকন। এই ফোনটি তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়েছে হীরা, চুনি, পান্না, নীলকান্ত মনি, স্বর্ণ ও বিশুদ্ধ প্লাটিনাম।

২) ব্লাক ডায়মন্ড আইফোন ৫

এই রফোনতির দাম ১৫.৩মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ৪২১কোটি টাকা। চীনের একজন ধনী ব্যবসায়ী যুক্তরাজ্যের কিংবদন্তী ডিজাইনার স্টুয়ার্ট হিউজকে একটি দামি ফোনের নকশা করতে বলেন যা পৃথিবীতে এর আগে কেউ কখনো দেখেনি। এই ফোনটি তৈরি করতে প্রায় ৯ সপ্তাহ সময় লেগেছিলো। এই ফোনতি নিরেট স্বর্ণ দিয়ে তৈরি। এর লোগো তৈরি করতে লেগেছে ৫৩টি হীরক খণ্ড। এর পুরো শরীর জুড়ে রয়েছে ৬০০টি হীরক খণ্ড। এর হোম বাটনটি তৈরি করা হয়েছে দুষ্প্রাপ্য ২৬ ক্যারটের কালো হীরা দিয়ে।

৩) ডায়মন্ড ক্রিপ্টো স্মার্টফোন

এই ফোনটির দাম ১.৩মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ১১ কোটি টাকা। এই ফোনটির অপারেটিং সিস্টেম হলো উইন্ডোজ। এর মূল কাঠামো বিশুদ্ধ প্লাটিনাম দিয়ে তৈরি। এর নেভিগেশন বাটন গুলো তৈরি ১৮ক্যারটের রোজ গোল্ড হীরা দিয়ে। এর দুইপাশে রয়েছে ২৫টি করে ৫০টি মহামূল্যবান হীরা।

৪) গোল্ডভিশ লা মিলিয়ন

এই মোবাইলের মূল্য ১.৩ মিলিয়ন ডলার বা প্রায় ১১ কোটি টাকা। এই মোবাইলটি তৈরি করেছে সুইস লাক্সারি মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি গোল্ডভিশ। এই মোবাইলটি তৈরি করা হয়েছে ১৮ ক্যারট হোয়াইট গোল্ড ও ১২০ ক্যারট নিখুঁত হীরক খণ্ড দিয়ে। এই ফোনটি অপারেটিং সিস্টেম হলো জাভা। এর নকশা করেছে সুইস ডিজাইনার অ্যামানুয়াল গুয়েত। মাত্র ৩টি এরকম ফোন তৈরি করা হয়েছে। ২০০৬ সালে এই ফোন তৎকালীন সবচেয়ে দামি ফোন হিসেবে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড বুকে জায়গা পায়।

৫) গ্রেসো লাক্সার লাস ভেগাস জ্যাকপট

এই মোবাইলটির মূল্য ১ মিলিয়ন ডলার বা সাড়ে ৮ কোটি টাকা। বিলাসবহুল পণ্য নকাশাকারক গ্রেসো এই মোবাইলটি নকশা করে। ২০০ বছরেরও পুরোনো বহু মূল্যবান আফ্রিকান গাছের কাঠ দিয়ে এই মোবাইলটির পিছনের অংশ তৈরি। পুরো মোবাইলটিতে কালো হীরা ও ১৮০গ্রাম স্বর্ণ ব্যবহার করা হয়েছে। ৩২ ক্যারেট ওজনের নীলকান্ত মণি দিয়ে এর বাটন তৈরি করা হয়েছে।