Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিল বাকি থাকায় ইন্টারনেট স্লো করে দিয়েছে সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি

বিভিন্ন অপারেটরের কাছে বিএসসিপিএলসির বকেয়ার পরিমাণ ৩৮৪ কোটি টাকা

আপডেট : ২৪ নভেম্বর ২০২৩, ০৮:০১ পিএম

বিল বকেয়া থাকায় দেশের ৩৪টি ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৯টির ব্যান্ডউইথ ডাউন করে দিয়েছে সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি। এতে করে গ্রাহকদের অনেকেই ধীরগতির ইন্টারনেট সেবা পাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) মধ্যরাতের পরে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলস পিএলসি (বিএসসিপিএলসি) ৫০০ জিবিপিএস (গিগাবিট পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইডথ সীমিত করে দেয়।

প্রসঙ্গত, দেশের মোট ব্যবহৃত (৫,১০০ জিবিপিএস) ব্যান্ডউইথের মধ্যে ২,৫০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ বিক্রি করে বিএসসিপিএলসি।

খাত সংশ্লিষ্টদের বরাত দিয়ে অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউন জানিয়েছে, আইটিসির (ইন্টারন্যাশনাল টেরিস্ট্রিয়াল ক্যাবল) ব্যাকআপ থাকায় ইন্টারনেটে সেবায় ধীরগতির প্রভাব খুব একটা বোঝা যাচ্ছে না। ছুটির দিন হওয়াও একটা কারণ। শনিবারও এই অবস্থা থাকবে। তবে রবিবার মূল প্রভাবটা বোঝা যেতে পারে।

এ প্রসঙ্গে বিএসসিপিএলসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মির্জা কামাল আহমেদ বলেছেন, “আইটিসির ব্যাকআপ থাকায় খুব একটা প্রভাব পড়ছে বলে আমাদের মনে হয় না।”

সরকারের নির্দেশে ব্যান্ডউইথ ডাউন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “বিল বকেয়া রেখে ব্যান্ডউইথ সরবরাহে আমাদের কঠোর হতে বলা হয়েছে। আমরা ‘নেটওয়ার্কস’ নামের এক আইআইজি প্রতিষ্ঠানের কাছে ৬১ কোটি টাকা পাবো। দীর্ঘদিন বলার পরও তারা বকেয়া পরিশোধ করছে না। ফলে তাদের ব্যান্ডউইথের বেশি অংশ ডাউন করা হয়েছে।”

রবিবারের মধ্যে আইআইজিগুলো বকেয়া পরিশোধ করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে পারে বলেও জানান তিনি।

জানা যায়, গত ১৩ জুলাই পাওনা আদায়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেয় বিএসসিপিএলসি। এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ৯ আগস্ট বিটিআরসিকে চিঠি দেয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়। চিঠিতে জানান হয়, বিভিন্ন অপারেটরের কাছে বিএসসিপিএলসির বকেয়ার পরিমাণ ৩৮৪ কোটি টাকা।

নিয়ম আছে এক মাসের বিল বিএসসিপিএলসিতে বকেয়া রাখা যাবে। বিএসসিপিএলসি যে হিসাব দিয়েছে তাতে করে দেখা যায় আইআইজিগুলোর প্রায় ৮ মাসের বিল বকেয়া রয়েছে।

About

Popular Links