Sunday, June 16, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পর্নোগ্রাফিতে ইন্ধনের অভিযোগে 'টিক টক' বন্ধের নির্দেশ

চীনের এই ভিডিও অ্যাপের সাহায্যে সহজেই ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া যায়। এর স্পেশ্যাল এফেক্টে ভিডিওগুলো বেশ আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে।

আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০১৯, ০৯:১২ পিএম

সাম্প্রতিক সময়ে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে স্মার্টফোনের ভিডিও অ্যাপ্লিকেশন 'টিক টক'। ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে খবর, প্রায় পাঁচ কোটি ৪০ লাখ ভারতীয় মজে আছেন এই অ্যাপের মজায়। কিন্তু যৌনতায় ইন্ধনের অভিযোগে এই ভিডিও অ্যাপ নিষিদ্ধ করতে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে মাদ্রাজের হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে এই অ্যাপের মাধ্যমে তৈরি ভিডিও ভারতের কোনও সংবাদমাধ্যমে না দেখানোরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

চীনের এই ভিডিও অ্যাপের সাহায্যে সহজেই ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া যায়। এর স্পেশ্যাল এফেক্টে ভিডিওগুলো বেশ আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেই সব এফেক্ট মজার হলেও তার আড়ালে যৌন উত্তেজক এফেক্টও থাকে বলে মাদ্রাজ হাইকোর্টে অভিযোগ করেন মাদুরাইয়ের প্রবীণ আইনজীবী ও সমাজকর্মী মুথু কুমার।

অভিযোগকারীর দাবি, মজার মোড়কে অনেক সময় পর্নোগ্রাফিক কন্টেন্ট ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। যা সংস্কৃতিকে অবক্ষয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এর কুপ্রভাব পড়ছে শিশুমনেও। বাড়ছে আত্মহত্যার প্রবণতা। এসব অভিযোগের ভিত্তিতেই অবিলম্বে আদালতের কাছে টিক টক নিষিদ্ধ করার আবেদন জানান।

বুধবার এই মামলার শুনানিতে ১৬ এপ্রিলের মধ্যে এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের মতামত জানতে চেয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্টে বিচারপতি এন কিরুবাকরন ও বিচারপতি এস এস সুন্দরের ডিভিশন বেঞ্চ। পাশাপাশি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চিলড্রেন'স অনলাইন প্রাইভেসি প্রোটেকশন অ্যাক্টের মতো আইন কার্যকর করা যাবে কি না তাও ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে জানতে চেয়েছে ওই আদালত।

আইনজীবী মুথুর অভিযোগ পর্যালোচনা করে আদালত জানায়, সোশ্যাল মিডিয়ায় কুরুচিকর বিষয় পরিবেশনের ফলে সমাজে টিকটকের প্রভাব বিপজ্জনক হতে পারে। সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়তে পারে শিশুমনে। আদালতের রায় শুনে মামলাকারী আইনজীবী নীলামিগম বলেন, “অন্তর্বতীকালীন এই নির্দেশে আমরা খুশি।”

যদিও টিক টক-এর মুখপাত্র স্থানীয় আইনকে মানতে প্রতিষ্ঠানের দায়বদ্ধতার কথা স্বীকার করে জানিয়েছেন, আদালতের নির্দেশের লিখিত রায় হাতে পেলে সে অনুযায়ী পদক্ষেপ নেবে টিকটক কর্তৃপক্ষ।

About

Popular Links