Thursday, May 30, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ জাবি

গত কয়েক দিনে লোডশেডিং আরও বেড়েছে

আপডেট : ৩০ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৪৫ এএম

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) মাঝেমধ্যেই লোডশেডিং হচ্ছে। এক সপ্তাহ যাবৎ লোডশেডিংয়ের এই মাত্রা বেড়েছে। তাপপ্রবাহের মধ্যে লোডশেডিংয়ের কারণে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা। লোডশেডিংয়ে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম ঠিক রাখতে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবি করেছেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গ্রীষ্মের খরতাপে দিনের বেলায় বাইরে বের হওয়া কঠিন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস-পরীক্ষা চালু রয়েছে। তবে প্রায়ই লোডশেডিং হচ্ছে। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের কারণে আবাসিক হলে অবস্থান করাও কষ্টকর হয়ে পড়েছে। কিছু বিভাগে চূড়ান্ত পরীক্ষা চলমান থাকলেও ঠিকমতো প্রস্তুতি নিতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা। বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে দৈনন্দিন কাজের পাশাপাশি শিক্ষা ও গবেষণাসহ প্রশাসনিক কাজেও ব্যাঘাত ঘটছে।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নিয়মিত লোডশেডিং হলেও আগাম কোনো বার্তা বা সিডিউল দেওয়া হয় না। গত এক সপ্তাহ ধরে প্রায় প্রতিদিনই গড়ে চার থেকে পাঁচবার পর্যন্ত লোডশেডিং হয়েছে। প্রতিবার লোডশেডিং হলে বিদ্যুৎ ফিরে আসতে ন্যূনতম এক ঘণ্টা সময় নিচ্ছে। আবার কখনও কখনও বাড়ছে লোডশেডিংয়ের স্থায়িত্ব। ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের ফলে পাঠদান করাতে গিয়ে শিক্ষকরাও বিপাকে পড়ছেন। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষার্থী গাজী সালাহউদ্দিন বলেন, “লোডশেডিং অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়ায় একদিকে যেমন গরমে সিদ্ধ হয়ে যাচ্ছি, অন্যদিকে পড়াশোনায় মনোযোগ দিতে পারছি না।”

লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী আবু বকর সিদ্দিকী বলেন, “গত কয়েক দিনে লোডশেডিং অতিরিক্ত বেড়েছে। একদিকে প্রচণ্ড গরম, অন্যদিকে ক্লাস চলাকালীন বিদ্যুৎ চলে গেলে মনোযোগও বসে না। এ বিষয়ে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।”

কেন এই বিদ্যুৎ বিভ্রাট? এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মো. শামসুল হক মৃধার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইল ফোনে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. আবু হাসান বলেন, “বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। বিভাগগুলোতে ক্লাস-পরীক্ষা, ল্যাব চলছে। আমরা এ বিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ কতৃর্পক্ষের সাথে কথা বলেছি। তারা সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে।”

About

Popular Links