Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাণিজ্যমন্ত্রী: বেশি দামে তেল-ডাল-চিনি বিক্রি করলেই কঠোর ব্যবস্থা

এখন থেকে ট্যারিফ কমিশনের বেঁধে দেওয়া দামের বেশি মূল্যে ভোজ্য তেল, ডাল, চিনি বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি

আপডেট : ০৫ এপ্রিল ২০২২, ১০:৪২ এএম

ব্যবসায়ীদেরে প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, অনেক অসৎ ব্যবসায়ী সুযোগ পেলেই দ্রব্যমূল্য বাড়িয়ে দেন। এ কারণে এখন থেকে ট্যারিফ কমিশনের বেঁধে দেওয়া দামের বেশি মূল্যে ভোজ্য তেল, ডাল, চিনি বিক্রি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ জন্য জেলা প্রশাসকদের প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১ টায় রংপুর সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে রংপুরে ক্যানসার হাসপাতাল স্থাপনের জন্য নেওয়া প্রকল্প সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “আর্ন্তজাতিক বাজারে ভোজ্য তেল, ডাল ও চিনির দাম অনেক গুণ বেড়েছে। ৬০০ টাকা টনের ভোজ্য তেলের দাম আর্ন্তজাতিক বাজারে ১৩০০ ডলারে পৌঁছেছে। একইভাবে ডাল এবং চিনির দামও বেড়েছে। প্রতি বছর আমাদের ভোজ্য তেলের চাহিদা থাকে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ টন। চাহিদার ৯০% বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয় ও ১০% আসে দেশে উৎপাদিত সরিষা থেকে।”

তিনি আরও বলেন, “আমরা এসব পণ্যের মুল্য সহনীয় পর্যায়ে রাখার চেষ্টা করছি। বিদেশ থেকে এসব পণ্য আমদানি করার পর ট্যারিফ কমিশন বসে দাম নির্ধারিত করে। তারপরও কিছু অসৎ ব্যবসায়ী অধিক মুনাভা লাভের আশায় দাম বাড়িয়ে দেয়। এ জন্য জেলায় জেলায় দাম মনিটারিং করার জন্য জেলা প্রশাকদের অসৎ মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।”

টিপু মুনশি বলেন, “পেঁয়াজের দাম অনেক কমে যাওয়ায় এখন কৃষকরা বিদেশ থেকে আমদানি বন্ধ রাখতে বলছেন। অথচ গত দুই বছর পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় আমি ভীষন দুশ্চিন্তায় থাকতাম। প্রতি কেজি পেয়াজের দাম ২০০ টাকা পর্যন্ত ওঠায় ভারত-মিয়ানমারসহ বিভিন্ন দেশ থেকে পিয়াজ আমদানী করতে হয়েছিল।”

তিনি বলেন, “এবার পেঁয়াজের ফলন ভাল হয়েছে। কিন্তু কৃষকরা বলছেন তারা ন্যায্য মুল্য পাচ্ছেন না। প্রতি কেজি পেঁয়াজের উৎপাদন খরচ ১৪ টাকা পড়লেও তারা ১৬-১৮ টাকায় বিক্রি করছে। এ কারণে তারা আমাকে বিদেশ থেকে আপাতত পেয়াজ আমদানী করতে নিষেধ করেছেন। কৃষকদের বিষয়টি দেখতে হবে কারণ তাদের ন্যায্য মুল্য নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব।”

নিজ উদ্যোগে রংপুরে একটি বিশ্বমানের ক্যানসার হাসপাতাল স্থাপন করার কথা জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “এ প্রকল্পে আমি নিজেই ব্যক্তিগতভাবে ২০ কোটি টাকা দেবো। কিন্তু শুধু টাকা দিলেই হবে না, এটিকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। সব শ্রেণির মানুষ যাতে সাশ্রয়ী মুল্যে ক্যানসারের চিকিৎসা পায় সে জন্য ব্যবস্থা নিতে হবে।”

সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট রোটারিয়ান ক্লাব উত্তরার জুলহাস আলম, জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, রংপুর মেট্রোপলিটান পুলিশের ডিসি অপরাধ মারুফুল ইসলামসহ বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন।

About

Popular Links