Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পররাষ্ট্রমন্ত্রী: ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ক ‘খুব মধুর’, পিটার হাস বাংলাদেশের বন্ধু

  • সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স
  • অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করা হবে
আপডেট : ১২ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৯:৫৮ পিএম

ঢাকা-ওয়াশিংটন সম্পর্ককে “খুব মধুর” উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডক্টর এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বাংলাদেশের একজন বন্ধু।

মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন

মোমেন বলেন, “তিনি (পিটার হাস) আমাদের একজন বন্ধু। বন্ধু হলে ভালো বা মন্দ বলবেন। তারা (মার্কিন) আমাদের বন্ধু। আমরা এটি (পরামর্শ) পছন্দ করি। আমরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করব।”

তিনি আরও দাবি করেন, “নির্বাচনের আগে সরকার কোনো রাজনীতিবিদকে হয়রানি করছে না, বরং অগ্নিসংযোগ এবং ভাংচুরের সঙ্গে জড়িত ‘সন্ত্রাসীদের’ গ্রেপ্তার করছে।”

আগামী ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে বিরোধীদের বিরুদ্ধে দমন-পীড়নের জন্য সরকারের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মানবাধিকার গোষ্ঠীর জানানো প্রতিবাদের বিষয়ে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

সরকার ও নির্বাচন প্রক্রিয়ার প্রতি অনাস্থা উল্লেখ করে নির্বাচন বর্জন করে বিএনপি। তাদের ২৮ অক্টোবরের জনসভা সহিংস রূপ নেয়। তারই ধারাবাহিকতায় সরকার বিএনপির বহু নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে। এরপর থেকে অবরোধ ও হরতাল দিচ্ছে বিএনপি।

নির্বাচন কমিশন ভোটের তফসিল ঘোষণার আগে দলগুলোর মধ্যে আলোচনার মধ্যস্থতা করায় সক্রিয় ছিলেন পিটার হাস।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য বলেছেন, “সরকার কোনো রাজনীতিবিদকে হয়রানি করছে না।”

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা নিচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমরা সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করছি...যারা মানুষ হত্যা করেছে, বাসে আগুন দিয়েছে ও সম্পত্তি ধ্বংস করেছে...পুরো বিশ্ব সন্ত্রাসীদের প্রতি শূন্য সহিষ্ণুতা দেখায়।”

এক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, “মানবাধিকার রক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ একটি আদর্শ দেশ। বাংলাদেশ মানবাধিকার বিষয়ে অন্যদের শিক্ষা দিতে পারে।”

তিনি বলেন, “গাজার দিকে তাকান, সেখানে কী হচ্ছে? অনেক উন্নত দেশে, ক্লাবে, স্কুলে, যেকোনো জায়গায় মানুষ হত্যা করা হয়।”

যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “আমাদের সম্পর্ক খুবই মধুর।”

তিনি বলেন, “আমরা সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী করার জন্য উন্মুখ।”

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “অবশ্যই, আমরা সবাই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। তারা (মার্কিন) অহিংস নির্বাচন চায়। আমরা বলেছি এটা সব দলের উপর নির্ভর করে' ইচ্ছা। মার্কিন আমাদের পরামর্শ দেয় কারণ তারা আমাদের বন্ধু।”

সিভিল এভিয়েশনের সঙ্গে পিটার হাসের বৈঠক ও নির্বাচনের আগে বোয়িং থেকে বিমান কেনার কোনো সুযোগ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মোমেন বলেন, “নির্বাচনের সঙ্গে কোনো কিছু বিক্রির সম্পর্ক নেই।”

পিটার হাসকে বিরক্ত না করার জন্য সাংবাদিকদের অনুরোধ করে তিনি বলেন, “সব দেশ তাদের পণ্য বিক্রি করতে চায়। এটা স্বাভাবিক। আমাদের কূটনীতিকরাও আমাদের পণ্য বিক্রি করতে চান। এটা খুবই স্বাভাবিক।”

তিনি বলেন, “বৈচিত্র্যের অংশ হিসেবে সরকার এয়ারবাস থেকে বিমান কিনবে।”

ঘানায় তার সাম্প্রতিক সফরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমরা সেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে যৌথভাবে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের আয়োজন করেছি।”

About

Popular Links