Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পিরোজপুরে গ্রেপ্তার এড়িয়ে পালাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে ঠিকাদারের মৃত্যু

‘আমার ভাইকে পরিকল্পিতভাবে তাড়া করে তিনতলার ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছে’

আপডেট : ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৫:৫৮ পিএম

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ছাদ থেকে পড়ে হালিম মৃধা (৪৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। পেশায় ঠিকাদার হালিম দুটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি ছিলেন। স্বজনদের ভাষ্য, পুলিশের “তাড়া খেয়ে” পালানোর সময় পড়ে গিয়ে তার মৃত্যু হয়।

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাত ১টার দিকে মঠবাড়িয়া পৌর এলাকার সবুজনগর মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতের বাড়ি ওই এলাকায়।

সূত্র জানায়, আর্থিক লেনদেন নিয়ে আদালতে দায়ের করা একটি মামলায় পরোয়ানাভুক্ত আসামি হালিমকে দীর্ঘদিন ধরে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে আসছিল পুলিশ। রাত দেড়টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে  বৃহস্পতিবার ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

সূত্র আরও জানায়, হালিম মৃধার সঙ্গে মো. নূরুজ্জামান নামে এক ব্যক্তির আর্থিক‘’ লেনদেন নিয়ে বিরোধ ছিল। এ ঘটনায় নূরুজ্জামান আদালতে হালিমের বিরুদ্ধে সম্প্রতি একটি  মামলা করেন। মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালায়। তখন হালিম সবুজনগর মহল্লায় তার আপন বোন রুমি বেগমের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হালিম তিনতলা ভবনের ছাদে উঠে যান। এরপর কী ঘটেছে তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না।

তবে নিহতের ভাই মামুন মৃধার অভিযোগ, “পুলিশ রাত দেড়টার দিকে আমার বাসায় এসে আমাকে জোর-জবরদস্তি করে বলে, ‘আপনার বোনের বাসার পিছনে কী যেন পড়ার শব্দ হইছে, দ্রুত চলেন’। একরকম টেনে-হিঁচড়ে পুলিশ আমাকে বোনের বাসার সামনে নিয়ে যায়। এ সময় ভবন থেকে নুরুজ্জামান তালুকদার ও অপরিচিত দুই ব্যক্তিকে সিঁড়ি দিয়ে নামতে দেখি। পুলিশ আমাকে বাসার পেছনে নিয়ে যায়। সেখানে নালায় ভাইয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখি। এ অবস্থা দেখে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই।”

তিনি বলেন, “আমার ভাইকে পরিকল্পিতভাবে তাড়া করে তিনতলার ছাদ থেকে ফেলে দেওয়া হয়েছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি।”

হালিমের বিরুদ্ধে মামলার বাদী নুরুজ্জামান তালুকদার বলেন, “ওই বাসায় যাবার প্রশ্নই আসে না। আমি সকালে শুনেছি হালিম মৃধা ছাদ থেকে পড়ে মারা গেছেন।”

মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, “মৃত ঠিকাদারের লাশ ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুরে পাঠানো হয়েছে। তার নামে দুইটি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। ঘটনার সময় টহলরত পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালাতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে মারা যেতে পারেন। নুরুজ্জামান তালুকদার পুলিশের সাথে ছিলেন না। তাছাড়া ওই দুটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মামলার কোনোটাতেই তিনি বাদী নন। অন্য কোনো ঘটনা থাকলে তদন্ত করে দেখা হবে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।”

About

Popular Links