Wednesday, May 29, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পোশাক শিল্পে পরিবর্তন আনবে কিউআর কোড

ধারণা করা হয়, প্রচলিত লেবেলিং বর্জ্য প্রায় ৩,৪৩,০০০ এমটি কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গত করে

আপডেট : ০৭ এপ্রিল ২০২৩, ০৫:০২ পিএম

লেবেলিং বর্জ্য কমিয়ে স্থানীয় পোশাক খাতের কার্বন হ্রাসে বড় ভূমিকা রাখতে পারে কিউআর কোড।

শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এরমাধ্যমে নকল পণ্যের উত্পাদন নিয়ন্ত্রণেও কার্যকর সুবিধা পাওয়া যাবে। এছাড়া এই শিল্পের মেধা সম্পত্তি অধিকার (আইপিআর) আরও ভালভাবে রক্ষায় সহায়তা করবে এটি।

ফ্যাশন শিল্প পরিবেশের সবচেয়ে বড় দূষণকারী। ধারণা করা হয়, প্রচলিত লেবেলিং বর্জ্য প্রায় ৩,৪৩,০০০ এমটি কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গত করে।

এছাড়া বিশ্বব্যাপী ফ্যাশন শিল্পের প্রয়োজনে প্রতি বছর প্রায় ৯.১৭ মিলিয়ন কিলোমিটার লেবেল টেপ তৈরি করা হয়। যা প্রতি বছর বারো বার পৃথিবী এবং চাঁদের মধ্যে প্রসারিত করার জন্য যথেষ্ট।

এজন্য বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজিএমইএ) বর্তমানে স্থানীয় ও বৈশ্বিক বাজারে নকল পণ্য পরীক্ষা করতে ও টেকসইতার সুবিধার্থে প্রচলিত লেবেলের পরিবর্তে একটি কুইক রেসপন্স (কিউআর) কোড লেবেল প্রবর্তনের পরিকল্পনা করছে।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান জানান, এটি তাদের উদ্ভাবন এবং তারা ইতোমধ্যে ব্র্যান্ড ও ক্রেতাদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছেন।

সম্প্রতি একটি বিবৃতিতে তিনি আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় সরকারগুলোকে তাদের দেশীয় ফ্যাশন লেবেলগুলোর প্রয়োজনীয়তাগুলোকে আধুনিকীকরণ এবং আরও টেকসই ও ডিজিটাল লেবেলগুলোর ব্যবহারকে উৎসাহিত করার আহ্বান জানিয়েছেন।

“ডিজিটাল প্রযুক্তি সমাধান যেমন কিউআর কোড লেবেল ডিজিটাল লেবেল ব্যবহারে স্থানান্তরিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে যা উল্লেখযোগ্যভাবে লেবেল বর্জ্য কমাবে,” তিনি মন্তব্য করেন।

“এছাড়া ডিজিটালভাবে তথ্য গ্রহণের জন্য গ্রাহকদের ক্রমবর্ধমান আগ্রহের প্রতিক্রিয়ায় বিশ্বজুড়ে প্রতিষ্ঠানগুলো প্রস্তাবিত ইইউ ডিজিটাল পণ্য পাসপোর্টের মতো ডিজিটাল পদ্ধতিতে পরিবর্তন করছে।”

এ বিষয়ে তিনি সরকারকে সম্পূর্ণরূপে ডিজিটাল লেবেলিং গ্রহণের অনুমতি দেওয়ার জন্য জাতীয় প্রবিধান সংশোধনের আহ্বান জানান।

হাসান আরও বলেন, “বিজিএমইএ তার ২০৩০ সালের টেকসই দৃষ্টিভঙ্গির সাথে নিজেকে সারিবদ্ধ করেছে যা বৈশ্বিক ফ্যাশন সাপ্লাই চেইনে স্থায়িত্ব, সার্কুলারিটি এবং স্বচ্ছতা প্রচার করে।”

“একটি সম্পূর্ণ ডিজিটাল লেবেলিং সমাধান উৎপাদন খরচ কমিয়ে দেবে ও এইভাবে ফ্যাশনকে আরও প্রতিযোগিতামূলক এবং সাশ্রয়ী করে তুলবে; এটি লিড টাইমও কমিয়ে দেবে ও ভোক্তারা তাদের ক্রয় করা পণ্য সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য অ্যাক্সেস করতে সক্ষম করবে, যা পণ্যের স্বচ্ছতা এবং সন্ধানযোগ্যতা নিশ্চিত করবে,” তিনি যোগ করেন।

স্প্যারো গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর শোভন ইসলাম এর আগে বলেছিলেন, “পোশাক প্রস্তুতকারীরা বর্তমানে একটি পোশাকে ৩-৮টি ট্যাগ/লেবেল রাখে যাতে ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে যেমন দেশের নাম, ব্র্যান্ডের নাম, পণ্যের গুণমান, ধোয়ার পদ্ধতি, পণ্যের বিবরণ এবং কোন রাসায়নিক এবং উপকরণ পণ্য ব্যবহার করা হয়।”

“আমাদের এই লেবেলগুলোকে একটি আইটেমে সংযুক্ত করতে ৪-৫ জন কর্মীকে কাজ করতে হয়।” তিনি আরও বলেন, “তারা একটি মডেল তৈরি করেছে, যেখানে নির্মাতারা সব ধরনের তথ্য অন্তর্ভুক্ত করতে সক্ষম হবে।”

“ভোক্তা পণ্যের বিশদ বিবরণ জানতে চাইলে কেবল কিউআর কোড স্ক্যান করে সবকিছু খুঁজে পাবেন,” তিনি যোগ করেন।

যদি ব্র্যান্ডগুলো কিউআর কোড লেবেল ব্যবহার করে, তাহলে নকলের ঘটনা হ্রাস পাবে এবং ব্র্যান্ড ও কর্তৃপক্ষ সহজেই পণ্যের উৎস জানতে সক্ষম হবে।

এই উদ্যোগটি এমন সময়ে সামনে এলো যখন মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি (ইউএসটিআর) বলেছে, প্যারিস-ভিত্তিক ইউনিয়ন ডেস ফ্যাব্রিক্যান্টস ও আমেরিকান অ্যাপারেল অ্যান্ড ফুটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশনের (এএএফএ) অভিযোগ করেছে, বাংলাদেশ থেকে জাল কাপড় ও অন্যান্য রপ্তানি পণ্য আসছে।

শোভন বলেন, “ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি ব্র্যান্ড এবং এএএফএ-এর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা হয়েছে। তাদের প্রতিক্রিয়া ইতিবাচক।”

“তবে, ক্রেতা দেশগুলোর আইনসহ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে এবং পুরো প্রক্রিয়া বাস্তবায়নে আরও সময় লাগতে পারে,” তিনি যোগ করেন। 

বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল আরও বলেন, “এটা খুবই ভালো, কিন্তু চ্যালেঞ্জিং পদক্ষেপ হবে এবং সময় লাগবে।”

বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রপ্তানিকারক ও ২০২২ অর্থবছরে সালে ৪২.৬১ বিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে।

About

Popular Links