Friday, May 24, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ১৭ দিন পর চার শিশুকে জীবিত উদ্ধার

শিশুদের দাদী-নানীর ভয়েস মেসেজ রেকর্ড করে বাজাতে শুরু যৌথ বাহিনীর সদস্যরা

আপডেট : ১৯ মে ২০২৩, ১২:১১ এএম

কলম্বিয়ায় উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার ১৭ দিন পর গভীর আমাজন জঙ্গল থেকে চার শিশুকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার হয়েছে। বিমানটি ১ মে বৈমানিকসহ সাতজনকে নিয়ে আমাজোনাস প্রদেশের আরাকুয়ারার এবং গুয়াভিয়ারে প্রদেশের সান হোসে দেল গুয়াভিয়ারে শহরের মাঝামাঝি অঞ্চলের গহীন বনে বিধ্বস্ত হয়। আকাশে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ায় হঠাৎ মাটিতে ধসে পড়া বিমানটির কাউকে জীবিত উদ্ধার করা যাবে এমন আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন সবাই।

বনজুড়ে বিশাল সব গাছ। কোনো কোনোটির উচ্চতা ১৩০ মিটারেরও বেশি। সব জায়গায় রাস্তা নেই। রাস্তা যা আছে সেগুলোও খুব অপ্রশস্ত। কলম্বিয়ার সেনাবাহিনী, দমকল এবং বেসামরিক বিমান চলাচল বিভাগের কর্মীরা তা সত্ত্বেও পাশের খরস্রোতা নদী হয়ে ঢুকে পড়েছিলেন আমাজনে। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বেশ কিছু কুকুর নিয়ে অভিযান শুরু করা এক হাজারেরও বেশি সদস্যের যৌথ বাহিনী হঠাৎ বনের ভেতরে চুলের ফিতা, কাঁচিসহ এমন কিছু জিনিস দেখতে পায়, যা দেখে মনে হয়েছিল কাছাকাছি কোনো জীবিত মানুষ থাকতে পারে।

জিনিসগুলো দেখে আরও মনে হয়েছিল, জীবিতদের মাঝে শিশুও রয়েছে। তাই তিনটি হেলিকপ্টার শুরুতে মানুষের অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হতে আমাজনের আকাশে এমনি এমনি টহল দিচ্ছিল। এক সময় বিমানে যে শিশুরা ছিল, তাদের দাদী-নানীদের ভয়েস মেসেজ রেকর্ড করে বাজাতে শুরু করে। সেই বার্তায় দাদী-নানীরা নাতি-নাতনিদের বলছিলেন, “তোমরা এক জায়গায় থাকো। এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যেয়ো না।”

শেষ পর্যন্ত তাতেই কাজ হয়। দাদী-নানীর কথা শুনে এক জায়গায় থেমে থাকায় উদ্ধারকর্মীরা এক সময় খুঁজে পায় তাদের।

বুধবার তাই সুখবর দিয়েছে কলম্বিয়ার সেনাবাহিনী। জানিয়েছে, সোমবার আর মঙ্গলবার প্রাপ্তবয়স্ক তিনজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল, অবশেষে বিমানের বাকি চারজনকেও পাওয়া গেছে। চারজনকেই পাওয়া গেছে জীবিত অবস্থায়।

জীবিত চারজনের মধ্যে একজনের বয়স ১৩ বছর, একজনের নয় বছর, একজনের চার বছর এবং বাকি একজনের বয়স মাত্র ১১ মাস! সেনাবাহিনীর বার্তায় আরও জানানো হয়, আশ্চর্যজনকভাবে বেঁচে যাওয়া চার শিশুই হুইটোটো আদিবাসী পরিবারের সন্তান। বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর তারা জঙ্গলের ভেতরে চলে যায়। বিমানের ধ্বংসাবশেষের কাছাকাছি ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা নানা জিনিস দিয়ে বনের ভেতরে অস্থায়ী ঘরের মতো কাঠামো তৈরি করে এতদিন থেকেছে তারা। ক্ষুধা নিবারণ করেছে বনের ফল, লতা-পাতা খেয়ে।

চার শিশুকে জীবিত উদ্ধারের খবর টুইটারে সানন্দে প্রকাশ করেছেন কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট গুস্তাভো পেত্রো। তিনি লিখেছেন, “এটা দেশের জন্য আনন্দের খবর।”

About

Popular Links