Monday, June 17, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

অল্পতে মসনদ রক্ষা নেপালের প্রধানমন্ত্রীর

প্রজাতন্ত্র ঘোষণার ১৬ বছরে ১৩টি সরকার দায়িত্ব পালন করেছে দেশটিতে

আপডেট : ২০ মে ২০২৪, ১০:৪৯ পিএম

রাজনীতিতে প্রবেশের আগে অবৈধভাবে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণের অভিযোগে সংসদীয় তদন্তের দাবিতে বিরোধীদের বিক্ষোভের মধ্যে সংসদে আস্থা ভোট জিতেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল। সোমবার (২০ মে) এ ভোট অনুষ্ঠিত হয়।

চীন ও ভারতের বিরোধীতার অন্যতম মাঠ হিসেবে পরিচিত হিমালয়ের দেশের সাবেক মাওবাদী বিদ্রোহী প্রধান পুষ্প কমল দাহাল মার্চ মাসে উদার কমিউনিস্ট ইউনিফাইড মার্কসবাদী-লেনিনবাদী (ইউএমএল) পার্টিসহ বেশ কয়েকটি ছোট দলের সমর্থনে একটি জোট মন্ত্রিসভা গঠন করেন।

তবে নেতাদের মতবিরোধের কারণে জোটের একটি ছোট অংশ সমর্থন প্রত্যাহার করলে নতুন আস্থা ভোটের প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

সংসদে সরকারের প্রধান বিরোধী নেপালি কংগ্রেস বলেছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা উপ-প্রধানমন্ত্রী রবি লামিছনে বেআইনিভাবে অনেকগুলো সমবায় কোম্পানির কাছ থেকে বড় অঙ্কের অর্থ নিয়েছেন। সেই অভিযোগ তদন্তে দাহালকে অবশ্যই একটি সংসদীয় প্যানেল গঠন করতে হবে।

রাজনীতিতে যোগদানের আগে যখন তিনি টেলিভিশন অনুষ্ঠানের উপস্থাপক ছিলেন।

তবে লামিছনে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

পার্লামেন্টের স্পিকার দেব রাজ ঘিমিরে বলেছেন, সোমবারের ভোটে ২৭৫ সদস্যের সংসদে দাহাল ১৫৭টি ভোট পেয়েছেন, যা প্রয়োজনীয় ন্যূনতম ১৩৮টি ছাড়িয়েছে, যেখানে একজন সদস্য ছাড়া সব বিরোধীরা অংশ নেয়নি।

সংসদে ঘিমিরে ঘোষণা দিয়ে বলেন, সংখ্যাটি সংসদের সব সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ার কারণে, আমি প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উত্থাপিত আস্থার প্রস্তাবটি পাস হিসেবে ঘোষণা করছি।

এ ঘোষণার সময় বিরোধী নেপালি কংগ্রেস পার্টি প্রতিবাদ করে ও স্লোগান দেয়।

১৯৯৬ সাল থেকে নেপালে  এক দশকব্যাপী বিদ্রোহের নেতৃত্ব দিয়েছেন দাহাল। যার যুদ্ধের নাম দে গুয়েরে প্রচন্ড,  যার অর্থ হিংস্র।

জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে ২০০৬ সালে শান্তি চুক্তির অধীনে মূলধারার রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার আগে তার নেতৃত্বাধীন বিদ্রোহে ১৭,০০০ জন মারা গিয়েছিল।

তিনি তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, যদিও আগের মেয়াদে তিনি পুরো পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষ করেননি।

নেপাল ২০০৮ সালে তার ২৩৯ বছরের পুরানো রাজতন্ত্র বিলুপ্ত করে ও একটি প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করে। এরপর থেকে ১৬ বছরে ১৩টি সরকার দায়িত্ব পালন করেছে।

About

Popular Links