Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

হাল্যান্ডের সংগ্রহে আছে ১১ কোটি টাকার ঘড়ি

তার সংগ্রহে থাকা সবচেয়ে কম দামি ঘড়িগুলোর দামও ১৬ লাখ টাকার আশেপাশে

আপডেট : ০২ মে ২০২৩, ০৫:৪৯ পিএম

আর্লিং হাল্যান্ড বিগত কয়েক মৌসুম ধরে বহুল চর্চিত এক স্ট্রাইকার। গোলমুখে ক্ষিপ্রতা, পজিশনিং সেন্স এবং নিখুঁত ফিনিশিং- সবকিছুর সমন্বয়ে এই ফরোয়ার্ড হয় উঠেছেন প্রতিপক্ষের দুশ্চিন্তা আর মাথাব্যথার কারণ। গত গ্রীষ্মকালীন দলবদলে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড থেকে হাল্যান্ডকে দলে ভেড়ায় ম্যানচেস্টার সিটি। মলদে, রেড বুল সালজবার্গ, বরুশিয়া ডর্টমুন্ড ঘুরে ইংলিশ ক্লাবটির হয়েও হাল্যান্ড একই রকম দুর্বার।

ম্যানসিটিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই গোলের ফোয়ারা ছুটিয়ে হাল্যান্ড মেতে উঠেছেন রেকর্ড ভাঙা-গড়ার খেলায়। ইতোমধ্যেই প্রিমিয়ার লিগে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোল, ম্যানসিটির হয়ে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড ভেঙে ফেলেছেন এ নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকার। হাল্যান্ডকে হাতছানি দিচ্ছে শীর্ষ ইংলিশ লিগের খেলোয়াড় হিসেবে মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড।

হাল্যান্ড যেমন গোল করতে ভালোবাসেন, হাতঘড়ি নিয়েও আর্লিং হাল্যান্ডের নেশা রয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২২ বছর বয়সী নরওয়েজিয়ান স্ট্রাইকারের সংগ্রহে বেশ কিছু নামিদামি ব্র্যান্ডের ঘড়ি রয়েছে। যার মোট দাম ১১ কোটি ৪৬ লাখ টাকারও বেশি।

এর মধ্যে কয়েকটি ঘড়ির দাম সর্বনিম্ন এক লাখ ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় এক কোটি ১৬ লাখ টাকার বেশি)। প্রতি সপ্তাহে বেতন বাবদ ৮ লাখ ৬৫ হাজার পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১১ কোটি ৪৪ লাখ টাকার বেশি) আয় করা হাল্যান্ড নিয়মিতই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে ঘড়িসহ ছবি পোস্ট করে থাকেন।

হাল্যান্ডের সংগ্রহে থাকা সবচেয়ে দামি ঘড়িটি হলো রয়্যাল ওয়াক জাম্বো। স্বর্ণ দিয়ে তৈরি আউডেমার্স পিজে কোম্পানির এ ঘড়িটির মূল্য তিন লাখ ২০ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা)। গেল বছর ব্লুবেরি পায়জামার সঙ্গে এই ঘড়িতে হাল্যান্ডকে দারুণ মানিয়েছিল।

হাল্যান্ডের সংগ্রহশালায় রয়েছে বিখ্যাত ব্র্যান্ড রোলেক্সের একাধিক ঘড়িও। হাল্যান্ডের কাছে থাকা সুইজারল্যান্ডের বিখ্যাত এ প্রতিষ্ঠানের ঘড়িগুলোর মধ্যে ডেটোনা আইয়ের টাইগার মডেলের কথা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। গত বছর গ্রিসের মাইকোনোস দ্বীপে ছুটি কাটানোর সময় ম্যানসিটি স্ট্রাইকারের হাতে দুই লাখ ৭২ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা) মূল্যের এ ঘড়ি দেখা গিয়েছিল।

এছাড়া, হাল্যান্ডের কাছে রোলেক্সের ডেটোনা আইস ব্লু ডায়াল, ডেটোনা গ্রিন ডায়াল ও রুটবিয়ার মডেলের ঘড়িও রয়েছে। বাংলাদেশি মুদ্রায় ঘড়ি তিনটির দাম যথাক্রমে এক কোটি ৪৫ লাখ টাকা, এক কোটি ১ লাখ টাকা ও ৫০ লাখ ১৫ হাজার টাকা।

হাল্যান্ডের সংগ্রহে পাটেক ফিলিপে কোম্পানির নটিলাস ব্লু ডায়াল মডেলের একটি ঘড়িও আছে। ঘড়িটির দাম এক লাখ ৩০ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১ কোটি ৫১ লাখ টাকা)। এছাড়া, হাল্যান্ডের কাছে আরেক সুইস ব্যান্ড ভাচেরন কন্সটানটিনের গোলাপি-সোনালি ঘড়িও রয়েছে, যার দাম ৭৬ হাজার ইউরো (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮৮ লাখ ৬৩ হাজার টাকা)।

আর্লিং হাল্যান্ড সম্প্রতি বড় অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে ঘড়ি প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ব্রিটলিংয়ের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। চুক্তির পর এই তরুণ তারকা স্ট্রাইকারের হাতে ব্রিটলিং ব্র্যান্ডের জিএমটি ৪০ মডেলের ঘড়ি দেখা গেছে, যার মূল্য চার হাজার ৯৫০ পাউন্ড (বাংলাদেশি মুদ্রায় ছয় লাখ ৫৪ হাজার টাকা)।

About

Popular Links