Wednesday, May 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ফুটবল খেলার ট্রফি ভেঙে আলোচনায় আলীকদমের ইউএনও

ইউএনও বলেন, ‘খেলায় হার জিত থাকবে, এতে কারও মন খারাপের কারণ নেই।’ তখন তিনি উপস্থিত দর্শকদের কাছে খেলার ফলাফলে সন্তুষ্ট কি-না জানতে চান

আপডেট : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:০৫ পিএম

ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় বিজয়ীদের জন্য আনা ট্রফি (কাপ) ভেঙেছেন বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মেহরুবা ইসলাম। এই ঘটনার একটি ভিডিও ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার দুই নম্বর চৈক্ষ্যং ইউনিয়নের রেপারপাড়ার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্বাধীন যুব সমাজের উদ্যোগে শুক্রবার আবাসিক জুনিয়র একাদশ বনাম রেপারপাড়া বাজার একাদশের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউএনও মেহরুবা ইসলাম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ৭০ মিনিটের এই খেলায় কোনো দল গোল করতে না পারায় টাইব্রেকারের সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। খেলায় চার টাইব্রেকারে আবাসিক জুনিয়র দলের চার গোল হয় এবং রেপারপাড়া একাদশের তিনটি গোল হয়। এতে আবাসিক জুনিয়র একাদশ চ্যাম্পিয়ন এবং রেপার পাড়া একাদশ রানার্সআপ হয়। পরে খেলার ফলাফল নিয়ে হট্টগোল শুরু হলে উপস্থিত জনসাধারণকে শান্ত করার চেষ্টা করেন ইউএনও।

এ সময় ইউএনও বলেন, “খেলায় হার জিত থাকবে, এতে কারও মন খারাপের কারণ নেই।” তখন তিনি উপস্থিত দর্শকদের কাছে খেলার ফলাফলে সন্তুষ্ট কি-না জানতে চান। তখন কয়েকজন বলেন, “খেলার ফলাফল মানি না।” এরপর ইউএনও ক্ষিপ্ত হয়ে খেলার চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ ট্রফি ভেঙে ফেলেন।

আরও পড়ুন- মানিকগঞ্জে ইট চুরির ঘটনার জেরে বোন জামাইকে হত্যা, শ্যালক গ্রেপ্তার

এ বিষয়ে রেপার পাড়া এলাকার বাসিন্দা নুর সালাম বলেন, “তিনি প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা হয়ে ট্রফি ভেঙ্গে খেলার সুন্দর পরিবেশ নষ্ট করেছেন। এই ঘটনা থেকে ক্রীড়ামোদীরা কি শিখবে?”

খেলায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কফিল উদ্দিন। তিনি ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “ইউএনও ক্ষিপ্ত হয়ে চ্যাম্পিয়ন এবং রানার্স আপ ট্রফি ভেঙে ফেলেন। ঘটনার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ইউএনওকে ঘটনাস্থল থেকে চলে যেতে অনুরোধ করি।”

এ বিষয়ে আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম বলেন, “অতি দ্রুত আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অন্যত্র বদলি করা হোক, অন্যথায় জনগণের আন্দোলনে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।”

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মেহেরুবা ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “খেলা শেষে হওয়ার পর থেকে হট্টগোল চলছিল। গোল নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ঝগড়া লেগে যায়। শান্ত করতে দীর্ঘ সময় কথা বলেছি। তাদের বুঝাতে তাদের সম্মতিতে ট্রফি ভাঙা হয়েছে। ট্রফি ভাঙ্গার পরও খেলোয়াড়রা মেডেল গ্রহণ করেছেন। কিন্তু পুরো ভিডিও বাদ দিয়ে আংশিক ভিডিও প্রচার করছে একটি মহল।”

প্রসঙ্গত, ২৪ এপ্রিল মেহরুবা ইসলাম বান্দরবানের আলীকদম উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করেন।

About

Popular Links