Friday, May 31, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

আধুনিক চিকিৎসাসেবা নিয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এক হাসপাতাল

২০১৮ আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল। এতে রয়েছে প্রশস্ত অপারেশন থিয়েটার, প্যাথলজি ও মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবরেটরি, ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন, আল্ট্রাসনোগ্রাম, ইসিজিসহ নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুবিধা

আপডেট : ১৭ জুলাই ২০২৩, ০৪:৩৪ পিএম

সাতক্ষীরার উপকূলীয় উপজেলা শ্যামনগর। প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধ করেই টিকে থাকতে হয় স্থানীয় বাসিন্দাদের। প্রতিকূল পরিবেশে তাদের এই লড়াই সহজও নয়। ১,৯৬৮ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের বিস্তীর্ণ এই উপজেলায় নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা। মানসম্মত হাসপাতালের অভাবে উপজেলার বাসিন্দাদের এক সময় ভুগতে হয়েছে বিনা চিকিৎসায়। অনাগত সন্তানের ভবিষ্যৎ চিন্তায় প্রসূতি মায়েদের দিন কেটেছে উৎকণ্ঠায়।

২০১৩ সালের কথা, শ্যামনগরের সোয়ালিয়া গ্রামে শুরু হলো এক হাসপাতাল নির্মাণের কাজ। এলাকাবাসীর আলাপ-সালাপ আর জল্পনায় কেটে গেল পাঁচটি বছর। ২০১৮-তে এসে শুরু হলো হাসপাতালের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম অর্থাৎ চিকিৎসাসেবা।

প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাঁচ বছরের এক নির্মাণযজ্ঞ। তা-ও আবার কাশেফ মাহবুব চৌধুরীর মতো নামকরা প্রকৌশলীর নকশায়। এই নির্মাণশৈলীর ন্যূনতম স্বীকৃতি প্রত্যাশিত ছিল। এলোও একদিন, ২০২১ সালে যুক্তরাজ্যের রয়্যাল ইনস্টিটিউট অব ব্রিটিশ আর্কিটেক্টস (রিবা) প্রকাশিত তালিকায় “বিশ্বের সেরা নতুন ভবন”-এর স্বীকৃতি পায় শ্যামনগরের ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ঝুঁকিতে থাকা দক্ষিণবঙ্গের এই স্থাপনাটিকে একটি “মানবিক স্থাপত্য” হিসেবে বর্ণনা করে পুরস্কারের জুরি বোর্ড।

মানবিক স্থাপত্যের এই স্বীকৃতির পেছনে কাজ করেছে তাদের সেবার মান। ভবনসহ পুরো হাসপাতাল চত্বরের নির্মাণশৈলী সেবাদান প্রক্রিয়ার অন্তর্ভুক্ত। হাসপাতাল ভবন নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে বিশেষ ধরনের ইট। ফ্রেন্ডশিপ কর্তৃপক্ষ মনে করে, মানসিকভাবে সুস্থ থাকলে রোগী খুব দ্রুত আরোগ্য পেতে পারেন।

সে কারণেই হাসপাতালজুড়ে এক অদ্ভুত পরিবেশ বিরাজমান। ওষুধের বিদঘুটে গন্ধ নেই, চিৎকার-চেঁচামেচি নেই, হাসিমুখে সেবা দিতে মুখিয়ে আছেন চিকিৎসক-নার্সরা। এমন হাসপাতাল দেশে বিরল।

হাসপাতাল চত্বরের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া লেক ইনডোর ও আউটডোরকে পৃথক করেছে। ফলে হাসপাতাল থেকে সংক্রমণের শঙ্কা নেই। লবণাক্ত এলাকায় অবস্থিত হাসপাতালটিতে রিভার্স অসমোসিস প্রক্রিয়ায় করা বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হয়।

শ্যামনগরের ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল/সৌজন্য

চিকিৎসাসেবার ধরন

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সেবাদানে নির্মিত এই হাসপাতালে রয়েছে ২৪ ঘণ্টার জরুরি সেবা। কাজ করে যাচ্ছেন পর্যাপ্ত সংখ্যক চিকিৎসক, নার্স, মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট। হাসপাতালে রয়েছে প্রশস্ত অপারেশন থিয়েটার, প্যাথলজি ও মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবরেটরি, ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন, আল্ট্রাসনোগ্রাম, ইসিজি ইত্যাদি পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুবিধা।

চক্ষু চিকিৎসার জন্য ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে রয়েছে স্লিট ল্যাম্প, রিফ্র্যাক্টোমিটার, রেটিনোস্কোপ, অপথালমোস্কোপ, বায়োমেট্রি সনোমেড। হাসপাতালটিতে রয়েছে মুখ ও দাঁতের বিশেষায়িত চিকিৎসা এবং আধুনিক যন্ত্রপাতিসহ ফিজিওথেরাপি বিভাগ।

দক্ষিণবঙ্গের প্রত্যন্ত অঞ্চলের এই হাসপাতালে রয়েছে বিশেষায়িত দুটি সেবা। প্রথমটি হলো- নারীদের জরায়ুমুখের ক্যান্সার শনাক্তে ভায়া ও কল্পোস্কপি পরীক্ষা। দ্বিতীয়টি পেইন সেন্টার। এই পেইন সেন্টারে আধুনিক পিআরপি পদ্ধতিতে স্বল্পমূল্যে সেবা দেওয়া হয়।

প্রায়ই এই হাসপাতালে বিদেশি চিকিৎসকরা এসে বিভিন্ন জটিল রোগের অপারেশন করেন। সে কারণে স্থানীয়রা স্বল্পমূল্যে জটিল রোগ থেকে মুক্তি পান। এছাড়া সিজারিয়ান অপারেশন করা হয় মাত্র আট হাজার টাকায়। আবাসিক রোগীদের শয্যা বাবদ প্রতিদিন খরচ হয় ২০০ টাকা। আর রোগীরা মাত্র ১২০ টাকায় সারা দিনের খাবার পেয়ে থাকেন, যা যেকোনো বেসরকারি হাসপাতালের তুলনায় কম।

রোগীদের অভিজ্ঞতা

শ্যামনগরের প্রত্যন্ত এলাকায় আধুনিক এই হাসপাতালটি সত্যিকারার্থে স্থানীয়দের কাছে এক আশির্বাদ। বেহাল যোগাযোগ ব্যবস্থা ও দারিদ্র্যের কারণে বিস্তীর্ণ এই জনপদের মানুষ দীর্ঘদিন ছিলেন চিকিৎসাবঞ্চিত।

তেমনই একজন উপজেলার বংশীপুর এলাকার মোহসীন গাজী। দীর্ঘদিন কোমরের ব্যথা নিরাময়ের আশায় তিনি ঘুরেছেন বিভিন্ন হাসপাতালে। সুস্থ হননি। শেষমেষ পরিচিত একজনের পরামর্শে আসনে ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে। এক সপ্তাহে তাকে সারিয়ে তোলেন চিকিৎসকরা।

সেই থেকে তার কাছে চিকিৎসায় ভরসা এই হাসপাতাল। সম্প্রতি তিনি ছেলেকে নিয়ে আসেন চোখের চিকিৎসার জন্য। জানালেন, চিকিৎসকদের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ওষুধও ন্যায্যমূল্যে মেলে হাসপাতালের ফার্মেসি থেকে।

চমৎকার কর্মস্থল

প্রত্যন্ত এলাকার এই চিকিৎসাকেন্দ্রটির স্বাস্থ্যসেবা যেমন অনন্য তেমনি কর্মস্থল হিসেবেও এটি চমৎকার। অন্তত হাসপাতালের কর্মীরা সে কথাই জানালেন। ল্যাবরেটরি, অপারেশন থিয়েটার, ক্যান্টিন ইত্যাদি বিভিন্ন শাখার কর্মীরা কাজ করে সন্তুষ্ট। আগে ঢাকার নামকরা প্রতিষ্ঠানে কাজ করে এসেছেন, এমন কর্মীও রয়েছেন ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালে।

About

Popular Links