Tuesday, May 28, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিজিবি: ধৈর্য ও মানবিকতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা হচ্ছে

 এ পরিস্থিতিতে সীমান্তে বসবাসকারীদেরও সর্তক থাকতে বলেছেন বিজিবি মহাপরিচালক

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৬:৫১ পিএম

মিয়ানমার সীমান্তে উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী বলেছেন, “সীমান্ত পরিস্থিতি বিজিবির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, অবৈধভাবে আর একজনকেও বাংলাদেশে ঢুকতে দেওয়া হবে না।”

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম সীমান্ত এলাকা এবং আশপাশের বিজিবি ফাঁড়ি পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, “আমরা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে ধৈর্য ধারণ করে, মানবিক থেকে এবং আন্তর্জাতিক সুসম্পর্ক বজায় রেখে পরিস্থিতি মোকাবিলার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।”

এসময় দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সবাইকে সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সীমান্তে উদ্ভূত যে কোনও পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য বিজিবি সদস্যদের তৎপর থাকার নির্দেশ দেন।

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিপি), সেনাবাহিনী, ইমিগ্রেশন সদস্য, পুলিশ ও অন্যান্য সংস্থার সব সদস্যদের খোঁজ-খবর নেন।

বিজিবিপ্রধান বলেন, “তাদের দ্রুত সময়ের মধ্যে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। এ ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। যারা আশ্রয় নিয়েছেন, তাদের সঙ্গে আলাপ করেছি। তারাও দ্রুত ফেরত যেতে আগ্রহী।”

বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গুলি ও মর্টার শেল এসে পড়ার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, “সংঘর্ষে গোলাগুলির ঘটনায় সীমান্ত অতিক্রম করে গুলি ও মর্টার শেল আসা এবং হতাহতের বিষয়টির প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে।”

পরিস্থিতির সার্বিক নজরদারি, স্থানীয় প্রশাসনসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হচ্ছে বলে জানান বিজিবি মহাপরিচালক। তিনি বলেন, “বিজিবি সর্বোচ্চ সজাগ এবং ধৈর্য ধরে পরিস্থিতি মোকাবিলা করে যাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে সীমান্তে বসবাসকারীদেরও সর্তক থাকতে হবে।”

About

Popular Links