Saturday, June 22, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পরামর্শ ছাড়াই ই-পাসপোর্টে বাদ যায় ‘ইসরায়েল ছাড়া’ শব্দটি

  • মোমেন বলেন, ইসরায়েল সম্পর্কে বাংলাদেশের অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে
  • ‘ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো বাণিজ্যিক সম্পর্কও নেই’
আপডেট : ৩১ মে ২০২৪, ০৬:৫২ পিএম

ইসরায়েল সম্পর্কে বাংলাদেশের অবস্থান অপরিবর্তিত থাকলেও ই-পাসপোর্ট থেকে ‘‘ইসরায়েল ছাড়া’’ শব্দটি বাদ দেওয়ার সময় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে পরামর্শ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন।

তিনি বলেন, ‘‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় পাসপোর্টের বিষয়গুলো দেখে। আমি তখন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলাম। আমার সাথে পরামর্শ করা হয়নি, এমনকি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাথেও পরামর্শ করা হয়নি।’’

বাংলাদেশী পাসপোর্টে এখন ‘‘ইসরায়েল ছাড়া বিশ্বের সব দেশের জন্য বৈধ লেখা থাকে না।’’

পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোমেন অবশ্য বলেছেন, ‘‘ইসরায়েলের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো বাণিজ্যিক সম্পর্কও নেই।’’

এফডিসিতে গণসংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় প্রশ্নের জবাবে শুক্রবার তিনি এসব কথা বলেন।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করেন এর চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

বিতর্কের বিষয় ছিল ‘‘মুসলিম বিশ্বের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা ফিলিস্তিনে ইসরায়েলি আগ্রাসন বন্ধ করতে সাহায্য করতে পারে।’’

বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক হয় স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ ও কবি নজরুল সরকারি কলেজের মধ্যে।

২০২১ সালে বাংলাদেশ কর্তৃক ইস্যু করা ই-পাসপোর্টে ইসরায়েল ভ্রমণের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারকে স্বাগত জানিয়ে ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা এক্স-এ একটি বার্তার প্রতি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়।

মোমেন বলেন, ‘‘তাদের বলা হয়েছে, বাংলাদেশি ই-পাসপোর্টের আন্তর্জাতিক মান বজায় রাখতে পর্যবেক্ষণটি অপসারণ করা হয়েছে।’’

সে সময় মন্ত্রণালয় বলেছিল, ‘‘এটি মধ্যপ্রাচ্যের প্রতি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতিতে কোনো পরিবর্তন বোঝায় না।’’

‘‘বাংলাদেশি পাসপোর্টধারীদের ইসরায়েলে ভ্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা অপরিবর্তিত রয়েছে,’’ এমএফএ অনুসারে।

বাংলাদেশ সরকার ইসরায়েলের বিষয়ে তার অবস্থান থেকে বিচ্যুত হয়নি ও বাংলাদেশ এ ব্যাপারে তার দীর্ঘদিনের অবস্থানে অটল রয়েছে।

বাংলাদেশ সরকার সর্বদা আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ এবং গাজায় ইসরায়েলের দখলদার বাহিনীর দ্বারা বেসামরিক নাগরিকদের ওপর চালানো নৃশংসতার নিন্দা করেছে।

১৯৬৭ সালের পূর্ববর্তী সীমান্ত ও পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে জাতিসংঘের প্রস্তাবের আলোকে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংঘাতের দ্বি-রাষ্ট্র সমাধানের বিষয়ে বাংলাদেশ তার নীতিগত অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোমেন বলেন, ‘‘মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে ঐক্য সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে।’’ তবে এজন্য পশ্চিমা বিশ্বের সঙ্গে জোরদার আলোচনার মাধ্যমে সম্পৃক্ত হওয়ার ওপর জোর দেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘‘সংস্থা হিসেবে জাতিসংঘের কোনো ক্ষমতা নেই। কারণ এ ধরনের বিষয়গুলো জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যদের ইচ্ছার ওপর নির্ভর করে।’’

মোমেন বলেন, ‘‘আমাদের এই পাঁচটি দেশ- চীন, ফ্রান্স, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বোঝাতে হবে। আমাদের নিজেদের স্বার্থে এবং মানবতার স্বার্থে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে বোঝাতে হবে।’’

তিনি বলেন, ‘‘কেউ কাজ করতে রাজি না হলে শান্তির লক্ষ্য অর্জন সম্ভব নয়।’’

মোমেন বলেন, ‘‘গণহত্যা বন্ধ এবং মানবাধিকার ও মর্যাদা রক্ষা নিশ্চিত করতে কথার পরিবর্তে সম্মিলিত আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার প্রয়োজন রয়েছে।’’

তিনি বলেন, ‘‘সুশীল সমাজের সদস্য ও গণমাধ্যমের সবার ভূমিকা রয়েছে পানির ফোঁটা হিসেবে, মহাসমুদ্রে পরিণত করতে।’’

মোমেন বলেন, ‘‘আমাদের কথার পরিবর্তে কাজে আন্তরিকতা প্রদর্শন করতে হবে।’’

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আঞ্চলিক শান্তি ও স্থিতিশীলতার গুরুত্ব তুলে ধরেন, যা এই অঞ্চল বজায় রাখে এবং এটি উন্নয়নকে টেকসই করতে সহায়তা করে।

তিনি বলেন, ‘‘ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে ইউরোপের অনেক দেশ সমস্যায় পড়েছে।’’

মোমেন বলেন, ‘‘তারা এ অঞ্চলে কোনো প্রক্সি যুদ্ধ চায় না।’’

জাতিসংঘে ফিলিস্তিনের পূর্ণ সদস্যপদ লাভের জন্য বাংলাদেশ সকল আন্তর্জাতিক ফোরামে এবং এর বাইরেও নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করার মাধ্যমে ফিলিস্তিনের প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেছে।

বাংলাদেশ একটি দীর্ঘমেয়াদী যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছে ও বেসামরিক জীবন ও অবকাঠামো রক্ষার জন্য সংযম প্রদর্শনের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে আহ্বান জানিয়েছে।

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ‘‘ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রকে সমর্থন করা নিয়ে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কোনো বিভাজন নেই উল্লেখ করে সবই ফিলিস্তিনের পক্ষে।’’

তিনি বলেন, ‘‘ফিলিস্তিনের মানুষের নীরব কান্না সারা বিশ্বে বিপন্ন মানবতার কান্না।’’

‘‘গাজায় হত্যা, লুটপাট, ধর্ষণ, নৃশংসতা এবং অমানবিকতা বিশ্বের ইতিহাসে অন্ধকার অধ্যায়,’’ যোগ করেন তিনি।

কিরন বলেন, ‘‘ফিলিস্তিনের প্রতিটি মানুষ এখন জীবন ও মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে।’’

তিনি ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংকট সমাধানে সাত দফা সুপারিশ পেশ করেন।

তিনি বলেন, ‘‘মুসলিম বিশ্বের উচিত শিয়া-সুন্নি বিভেদ ভুলে ঐক্যবদ্ধ হওয়া।’’

ছায়া সংসদে কবি নজরুল সরকারি কলেজের বিতার্কিকদের পরাজিত করেছে স্টেট ইউনিভার্সিটি।

About

Popular Links