Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

ছেলের নাম ‘তারিক জামিল’ রাখলেন শোবিজ ছেড়ে ধর্মে মন দেওয়া সানা খান

সাবেক এই বলিউড অভিনেত্রী ইসলাম প্রচারক হিসেবে পরিচিত পাকিস্তানি ধর্মীয় বক্তা মাওলানা তারিক জামিলের নামানুসারে ছেলের নাম রেখেছেন বলে জানা গেছে

আপডেট : ১০ জুলাই ২০২৩, ১০:১৭ এএম

শোবিজের ঝলমলে জগতকে ২০২০ সালেই বিদায় জানিয়েছিলেন সানা খান। বর্তমানে ধর্মকর্ম নিয়েই ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। স্বামী আনাস সাইয়াদকে নিয়ে ২০২২ সালে হজ এবং কয়েকদিন আগে ওমরাহ পালন করেন সাবেক এই বলিউড অভিনেত্রী।  

ওমারহ পালনের সময়ই জানিয়েছিলেন তিনি মা হতে চলেছেন। অবশেষে গত বুধবার (৫ জুলাই) পৃথিবীর মুখ দেখে সানা-আনাস দম্পতির প্রথম সন্তান। আর এই ছেলে সন্তানের নাম রাখা হয়েছে তারিক জামিল। 

ইসলাম প্রচারক হিসেবে পরিচিত পাকিস্তানি ধর্মীয় বক্তা মাওলানা তারিক জামিলের নামানুসারে সানা খান তার ছেলের নাম রেখেছেন বলে জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

এ বিষয়ে সানা খানের ভাষ্য, "নাম ব্যক্তিত্বের ওপর দারুণ প্রভাব ফেলে। আমরা আমাদের ছেলের জন্য এমন একটি নাম চেয়েছিলাম যা ধর্মপরায়ণতা, সহনশীলতা, ভদ্রতা এবং সততার প্রতীক।"

২০০৭ সালে “ধান ধানা ধান গোল” সিনেমার মাধ্যমে আলোচনায় আসেন সানা খান। ছবিটি ব্যবসায়িকভাবে সফল না হলেও ওই সিনেমার একটি গানে প্রচুর জনপ্রিয়তা পান তিনি। সানা খান তামিল, তেলেগু, কন্নড়, মালায়ালাম ভাষার একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন। ২০১২ সালে রিয়ালিটি শো “বিগ বস”-এ অংশগ্রহণ করে জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছে যান। সালমান খানের “জয় হো”, “ওয়াজা তুম হো”, “স্পেশাল অপস” ছবিতেও কাজ করেছেন সানা।

“বিগ বস” খ্যাত বলিউড অভিনেত্রী সানা খান ২০২০ সালে হঠাৎ করেই ১৫ বছরের ক্যারিয়ার ছেড়ে ধর্মের পথ বেছে নেওয়ার ঘোষণা দেন। তারপর মাসখানেকের মধ্যে  আনাস সাইয়াদকে  বিয়ে করেন তিনি। বিনোদনের দুনিয়া ছেড়ে দেওয়ার কারণ হিসেবে সানা পরবর্তীতে বলেছিলেন, অতীত জীবনে তার কাছে খ্যাতি, নাম, অর্থ সব ছিল। কোনো কিছুর কমতি ছিল না। তিনি যা চেয়েছেন সবকিছুই করতে পেরেছেন। তার মতে এতকিছু থাকার পরেও একটি জিনিসের অনুপস্থিতি বোধ করছিলেন তিনি। সেটা হলো শান্তি। কোনোকিছুতেই তিনি তখন শান্তি পাচ্ছিলেন না।

এ অভিনেত্রী আরও জানান, ২০১৯ সালের রমজান মাসে তিনি বেশ অসুস্থ হয়ে পড়েন। অসুস্থতার কারণে তখন তিনি বিষণ্ণতায় ভুগছিলেন।

এক সাক্ষাৎকারে সানা বলেন, “আমি স্বপ্নে নিজেকে কবরে জ্বলতে দেখতাম। এই স্বপ্ন আমার কাছে মনে হয়েছিল কোনো বিশেষ বার্তা।” তারপরই সব ছেড়ে ধর্মের পথ বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন সানা। সানার ভাষ্যমতে, “আমার বাড়িতে একাধিক স্কার্ফ ছিল; ওই দিনের পর যে আমি হিজাব পরলাম প্রতিজ্ঞা করলাম আর কখনও তা ছাড়ব না।”

About

Popular Links