Saturday, May 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় সুইডিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে মোমেনের ফোনালাপ

যেকোনো পরিস্থিতিতে কোরআনের অবমাননা ও পুড়িয়ে ফেলার মতো ঘটনায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন

আপডেট : ৩১ জুলাই ২০২৩, ১০:৫১ এএম

সাম্প্রতিক সময়ে সুইডেনে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘটনায় কারণে উদ্ভূত সমস্যা নিয়ে  সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টোবিয়াস বিলস্ট্রোমের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

রবিবার (৩০ জুলাই) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়, যেকোনো পরিস্থিতিতে কোরআনের অবমাননা ও পুড়িয়ে ফেলার মতো ঘটনায় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

ফোনালাপে ড. মোমেন পারস্পরিক শ্রদ্ধা, সম্প্রীতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের স্বার্থে এ ধরনের অযৌক্তিক উসকানি বন্ধ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি বাংলাদেশের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন। সুইডেনকে বাংলাদেশের বিশ্বস্ত বন্ধু উল্লেখ করে ড. মোমেন আশা করেন, সুইডেনে এ ধরনের ঘৃণ্য কাজ আর হবে না।

সুইডিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উল্লেখ করেন, যেকোনো ইসলামফোবিক কাজ সুইডিশ সরকার নিন্দা জানায় ও প্রত্যাখ্যান করে। তিনি কোরআন বা অন্য কোনো ধর্মগ্রন্থের অবমাননাকে আপত্তিকর ও অসম্মানজনক কাজ বলে অভিহিত করেন।

তিনি বলেন, “সুইডেনের সরকারি সংস্থাগুলো স্বাধীন সিদ্ধান্ত নেয় এবং সেই অনুযায়ী সুইডিশ পুলিশ কর্তৃপক্ষ বিক্ষোভের জন্য অনুমতি দেয়। তবে এটি পবিত্র কোরআন বা অন্য কোনো পবিত্র ধর্মগ্রন্থ পোড়ানোর অনুমতি দেয় না।”

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বলেন, “বাংলাদেশ একটি ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ, যেখানে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলেই ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যোগ দেয়।” সুইডিশ কর্তৃপক্ষ সংশোধনমূলক ব্যবস্থার উদ্যোগ নেওয়ায় তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

সুইডিশ মন্ত্রী বাংলাদেশের সমাজকে অত্যন্ত সহনশীল আখ্যায়িত করেন এবং বাংলাদেশে বিরাজমান ধর্মীয় সম্প্রীতির প্রশংসা করেন। বাংলাদেশের সংবিধানের বিধান অনুযায়ী আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবে।

তিনি সুইডেনকে নির্বাচন পর্যবেক্ষক পাঠানোর অনুরোধ জানান। সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুইডেনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমন্ত্রণ জানানোর আশ্বাস দেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৮ জুন মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল-আজহার দিন সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমের প্রধান মসজিদের সামনে প্রকাশ্যে কোরআন শরিফে আগুন দেন সালওয়ান মোমিকা নামের এক ইরাকি বংশোদ্ভূত শরণার্থী।

এর আগে গত এপ্রিল মাসে দেশটির মালমো শহরে কোরআন শরীফ পোড়ায় স্ট্রাম কুর্স নামের একটি কট্টর ডানপন্থী সংগঠন।

এই বছরের জানুয়ারিতে এবং ২০২০ সালেও সুইডেনে একই ঘটনা ঘটেছে।

একই ঘটনা ঘটেছে ইউরোপের আরেক দেশ ডেনমার্কেও। ২১ জুলাই ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে “ড্যানিশ প্যাট্রিওটস” নামের একটি উগ্রপন্থি গোষ্ঠী কোরআন শরীফে আগুন ধরিয়ে দেয়।

এরপর ২৪ জুলাই কোপেনহেগেনে ইরাকি দূতাবাসের সামনে কোরআনের আগুন ধরিয়ে দেয় একদল বিক্ষোভকারী।

About

Popular Links