Monday, May 27, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বাসযোগ্যতার তলানিতে থাকা ঢাকার বড় বিপত্তি অধিক জনসংখ্যা

মধ্যমআয়ে উন্নীত হওয়া দেশের রাজধানীতে বসবাসকারী মানুষেরা নাগরিক সুবিধা তেমন একটা পান না। এরও অন্যতম কারণ জনসংখ্যার মাত্রাতিরিক্ত চাপ

আপডেট : ১১ জুলাই ২০২৩, ১১:৫৬ এএম

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা। দেশের মানুষের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য ঢাকায় বসবাস করা। বাধ্য হয়েই অবশ্য তারা এই সিদ্ধান্ত নেন। অনেকে জীবিকার তাগিদে, অনেকে ব্যবসার এবং অনেকে রাজনৈতিক ও অন্যান্য কারণে ঢাকায় বসবাস করেন। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য যে বসবাসযোগ্যতার দিক থেকে ঢাকার অবস্থান একদম তলানিতে।

বিশ্বের সর্বাধিক বায়ুদূষণের শহরটি বিশ্বের বাসযোগ্য শহরের তালিকায় ১৬৬তম অবস্থানে রয়েছে। যা শেষের দিক থেকে সপ্তম।

স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, স্থিতিশীলতা, অবকাঠামো এবং পরিবেশসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনায় বাসযোগ্য শহরের তালিকা সম্প্রতি প্রকাশ করেছে ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (ইআইইউ)। এই তালিকায় এমন তলানিতে রয়েছে ঢাকা।

তবে বসবাসযোগ্যতার দিক থেকে তলানিতে থাকলেও দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম ব্যয়বহুল শহর ঢাকা। এখানে বসবাসরত মানুষের জীবনধারণে যে পরিমাণ ব্যয় করতে হয় তা দক্ষিণ এশিয়ার আর অন্যকোনো শহরে থাকতে ব্যয় করতে হয় না।

এর অন্যতম কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন জনসংখ্যার মাত্রাতিরিক্ত চাপকে। নগর পরিকল্পনাবিদরা মনে করেন, ঢাকার সবচেয়ে বড় বিপদ এর জনসংখ্যা।

জনশুমারির তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা ছিল ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন। মোট জনসংখ্যার ৬৮.৩৪% গ্রামাঞ্চলে এবং ৩১.৬৬% শহরে বাস করে। সবচেয়ে বেশি মানুষ বাস করে ঢাকা এলাকায়। ঢাকা বিভাগে বাস করেন ৪ কোটি ৫৬ লাখ ৪৩ হাজার ৯১৫ জন। এই সংখ্যা বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার ২৬.৮৮%। সবচেয়ে কম জনসংখ্যা বরিশাল বিভাগে। সেখানে মোট জনসংখ্যার ৫.৪৯%, অর্থাৎ বরিশাল বিভাগে বাস করেন প্রায় ৯৩ লাখ মানুষ। 

ঢাকায় মাত্রাতিরিক্ত জনসংখ্যার কারণে কোনো পরিকল্পনাই সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না। যার কারণে বাসযোগ্যতার দিক থেকে পিছিয়ে পড়তে হচ্ছে ঢাকাকে।

পরিবেশবিদ আব্দুল মতিনের সঙ্গে ঢাকার জনসংখ্যা সমস্যা নিয়ে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তিনি বলেন, “একটা শহর বাসযোগ্য করবেন তার নাগরিকের জন্য। যখন বিপুল জনসংখ্যা নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে একটি জনঘনত্বপূর্ণ এলাকায়, তখন আপনার কোনো উদ্যোগই কাজ করবে না। ঢাকার ক্ষেত্রেও তাই ঘটছে। উন্নয়নে টাকা কম লগ্নি হচ্ছে না, সদিচ্ছারও অভাব নেই। কিন্তু পরিস্থিতি আপনার পক্ষে না। ফলে যারা বাস্তবায়নকারী তারা নানাবিধ চাপ বোধ করেন। সেই চাপ জনসংখ্যার। যারা পরিকল্পনা করেন এবং যারা বাস্তবায়ন করেন, তাদের মধ্যে সমন্বয়েরও অভাব দেখতে পাই আমি।”

মধ্যমআয়ে উন্নীত হওয়া দেশের রাজধানীতে বসবাসকারী মানুষেরা নাগরিক সুবিধা তেমন একটা পান না। এরও অন্যতম কারণ জনসংখ্যার মাত্রাতিরিক্ত চাপ। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও নগর পরিকল্পনাবিদ আখতার হোসেনও এ বিষয়ে একমত পোষণ করেন।

তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, “সাধারণত বড় শহরে প্রতি একর ঘনত্বে ১৫০ থেকে ২০০ মানুষ থাকার কথা। সেখানে ঢাকায় কোনো কোনো স্থানে ৬০০ পর্যন্ত মানুষ বসবাস করছেন। ঢাকায় বসবাসকারী মানুষের তুলনায় এখানে নাগরিক সুযোগ-সুবিধা কম। ঢাকার বাসযোগ্যতা হারানোর পেছনে প্রধানতম কারণ এর জনসংখ্যা।”

About

Popular Links