Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

বিশ্ব ব্যাংক: ২০২৩ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৫.২%

বিশ্বব্যাংক বলছে, মূল্যস্ফীতির চাপে ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার কারণে চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশে জিডিপির প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জিত হবে না

আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০২৩, ০৯:১৬ পিএম

২০২২-২৩ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি নেমে ৫.২% হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

বিশ্বব্যাংক বলছে, মূল্যস্ফীতির চাপে ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার কারণে চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশে জিডিপির প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জিত হবে না। কমবে ১.৫%।

ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি, কঠোর আর্থিক অবস্থা, আমদানি বিধিনিষেধ ও বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার মধ্যেও প্রকৃত জিডিপি বৃদ্ধিকে ধীর করবে বলে মনে করছেন ওয়াশিংটন-ভিত্তিক এই ঋণদাতা সংস্থা।

সোমবার তাদের প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট এপ্রিল-২০২৩ বলছে, মুদ্রাস্ফীতির চাপ কম হওয়া, বাহ্যিক অবস্থার উন্নতি এবং সংস্কার বাস্তবায়নের ট্র্যাকশন পাওয়ায় বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি মধ্যমেয়াদে ত্বরান্বিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি চাপ, জ্বালানি ঘাটতি ও রাজস্ব ঘাটতির প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের অর্থনীতি নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে।

বিশ্বব্যাংকের দ্বি-বার্ষিক প্রতিবেদন অনুসারে, বাণিজ্য, আর্থিক সংস্কার ও বাস্তবায়ন ত্বরান্বিত করা প্রবৃদ্ধি বজায় রাখতে সহায়তা করতে পারে।

নেতিবাচক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানি বাজারের চাহিদা কমে যাওয়া ও আর্থিক খাতের দুর্বলতা।

এতে বাংলাদেশ ও ভুটানের জন্য বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদৌলায়ে সেক তার সূচনা বক্তব্যে বলেন, “ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন ও বৈশ্বিক অনিশ্চয়তা সারা বিশ্বের দেশগুলোকে প্রভাবিত করেছে।”

“বাংলাদেশের মহামারী পরবর্তী পুনরুদ্ধার দ্রব্যমূল্যের উচ্চতা, ক্রমবর্ধমান সুদের হার এবং বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির ধীরগতির কারণে ব্যাহত হয়েছে।”

“প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে ও স্থিতিস্থাপকতা জোরদার করতে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে সংস্কারে সহায়তা করতে প্রস্তুত রয়েছে,” তিনি যোগ করেন। 

প্রতিবেদনের মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র অর্থনীতিবিদ এবং প্রতিবেদনের সহ-লেখক বার্নার্ড হ্যাভেন।

তিনি বলেন, “বাংলাদেশের রপ্তানির প্রায় ৮৩% তৈরি পোশাক খাত। কোভিড-১৯ মহামারী একটি একক খাতের উপর অত্যধিক নির্ভরতার ঝুঁকির উপর জোর দিয়েছে।”

তিনি পরামর্শ দিয়েছিলেন, রপ্তানি বহুমুখীকরণ ও প্রতিযোগিতামূলকতা বৃদ্ধি বাংলাদেশকে ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের অবস্থায় পৌঁছাতে সহায়তা করবে। 

এটি অর্জনের জন্য বাংলাদেশকে শুল্ক ও অশুল্ক উভয় বাধা দূর করতে হবে। একটি ব্যাপক সংস্কার এজেন্ডা, বিশেষ করে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাথে, আঞ্চলিক একীকরণকে আরও গভীর করতে পারে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, আর্থিক ঘাটতি ২০২৩ অর্থবছরে আরও প্রসারিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে কারণ ভর্তুকি ব্যয় বৃদ্ধি পাবে।

রাজস্ব ঘাটতি  ২০২৩ অর্থবছরের জিডিপির ৪.৪%-এ উন্নীত হবে বলে অনুমান করা হয়েছে। যদিও বাংলাদেশ ঋণ সংকটের কম ঝুঁকিতে রয়েছে। 

অন্যদিকে,  ২০২৩ অর্থবছরে মোট রাজস্ব জিডিপির ৮.৫% এ থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সমীক্ষা অনুসারে, আমদানি বৃদ্ধি ও রেমিট্যান্স প্রবাহ হ্রাসের কারণে অর্থপ্রদানের ব্যালেন্স (বিওপি) ঘাটতি  ২০২২ অর্থবছরে-এ ৫.৩ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে।

 ২০২৩ অর্থবছরে প্রথমার্ধে আমদানি কমে গেলেও, বিওপি ঘাটতি বেড়ে ৭.২ বিলিয়ন ডলার হয়েছে কারণ বাণিজ্য ক্রেডিট দ্রুত সঙ্কুচিত হয়েছে, মাঝারি ও দীর্ঘমেয়াদী ঋণ কমেছে, যা আর্থিক অ্যাকাউন্ট ঘাটতিতে অবদান রেখেছে।

এটি আরও দেখায়, একটি জটিল একাধিক-মুদ্রা কাঠামো বাজারের প্রণোদনাকে বিকৃত করেছে।

বিওপি ঘাটতি আরও খারাপ হয়েছে, ২০২৩ অর্থবছরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের উপর চাপ সৃষ্টি করেছে। 

২০২২ সালে সেপ্টেম্বরে বাস্তবায়িত একটি মাল্টিপল কারেন্সি রেট সিস্টেম রপ্তানি ও আনুষ্ঠানিক রেমিট্যান্স প্রবাহকে হ্রাস করেছে যখন অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা ও বিওপি চাপকে বাড়িয়ে তুলছে।

মুদ্রানীতি কঠোর করা হয়েছিল, অন্যদিকে আর্থিক খাতের দুর্বলতা আরও গভীর হয়েছে। 

আর্থিক নীতি ২০২২ অর্থবছরেরর শেষের দিকে ও ২০২৩ অর্থবছরের প্রথমার্ধে আরও সুবিধাজনক হয়ে ওঠে। তবুও, একটি ঋণের হারের সীমা বর্ধিত নীতির হারের সংক্রমণে বাধা দেয়।

সীমিত তারল্য ও আঁটসাঁট নেট সুদের মার্জিন বেসরকারি-খাতের ঋণ সম্প্রসারণকে বাধাগ্রস্ত করেছে। অ-পারফর্মিং ঋণ বৃদ্ধি, দুর্বল মূলধন ও ব্যাংক পরিচালনার সমস্যা, আর্থিক খাতের দুর্বলতা বৃদ্ধি পেয়েছে।

অন্যদিকে, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট হল সাউথ এশিয়া ইকোনমিক ফোকাসের একটি সহযোগী নিবন্ধ, একটি দ্বি-বার্ষিক বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদন যা দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং সম্ভাবনার পাশাপাশি সরকারগুলির সম্মুখীন নীতিগত সমস্যাগুলি বিশ্লেষণ করে৷

About

Popular Links