Tuesday, May 21, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সোহেল তাজ: জেলহত্যার বিচার এখনও পাইনি

পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারের মধ্যে নিহত চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ

আপডেট : ০৩ নভেম্বর ২০২২, ০৭:৫০ পিএম

১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর গভীর রাতে কারাগারের অভ্যন্তরে হত্যা করা হয় জাতীয় চার নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এ এইচ এম কামরুজ্জামান এবং ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে। সেই হত্যাকাণ্ডের বিচার এক অর্থে এখনও পাননি বলে মন্তব্য করেছেন তাজউদ্দীন আহমদের ছেলেও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ।

তিনি বলেন, “এক অর্থে আমরা জেল হত্যাকাণ্ডের বিচার এখনও পাইনি। এখন এই বিচার পাওয়ার একমাত্র উপায় হলো, একটি সুষ্ঠু তদন্ত কমিশন গঠন করতে হবে। তবে সেই তদন্ত কমিশন হতে হবে সর্বজনগৃহীত। যারা জনগণের কাছে, বাংলার মানুষের কাছে, নতুন প্রজন্মের কাছে সঠিক তথ্য পরিবেশন করবে। মানুষের মধ্যে আমরা আস্থার সৃষ্টি করে পারি। যাতে করে ১৫ আগস্ট, ৩ নভেম্বরের মতো হত্যাকাণ্ড আর যেনো দেশের মাটিতে না ঘটে।”

বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) বেলা ১১টায় রাজধানীর চকবাজার পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারের মধ্যে নিহত চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

সোহেল তাজ বলেন, “এই হত্যার সম্পূর্ণ তদন্ত হওয়া উচিত। কারণ আমরা দেখেছি '৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর মিলিটারি শাসক গোষ্ঠী জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স জারি করে। ফলে বিচারের সব পথ বন্ধ করে দেওয়া হলো। পরবর্তী সময়ে বিচারকাজ শুরু হলেও ২০০১ সালে এই বিচারকাজকে সম্পূর্ণভাবে প্রভাবিত করে প্রহসনমূলক একটা রায় দেওয়া হলো ২০০৪ সালের অক্টোবর মাসে।”

তিনি বলেন, “১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি বাহিনী যখন বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়, তখন বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথেই জাতীয় চার নেতা বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠন করেন। বিচক্ষণ ও দূরদর্শিতার সঙ্গে তারা সরকার পরিচালনা করেছেন। তখন এমন একটি বৈরী অবস্থা, যখন গ্লোবাল পলিটিক্যাল অবস্থা মুহূর্তেই পরিবর্তিত হচ্ছিল, সোভিয়েত, রাশিয়া ও পশ্চিমা বিশ্ব স্নায়ু যুদ্ধ চলছিল।”

জাতীয় চার নেতার অবদানের কথা উল্লেখ করে সোহেল তাজ বলেন, “এক কোটি শরণার্থীকে সামলানো, মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া, অস্ত্রসজ্জিত করা, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে যারা আমাদের স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনে দিয়েছেন ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে, বঙ্গবন্ধুর সেই ঘনিষ্ঠ চার সহচর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হলো! বঙ্গবন্ধুকে সপরিবার হত্যার মাত্র তিন মাসের মাথায়! অবশ্যই এই দুই হত্যাকাণ্ড একই সূত্রে গাথা।”

২০০৮ সালে আবারও রায়ের অ্যাভিডেন্স, তথ্য ও সাক্ষীদের ভয়-ভীতি দেখিয়ে বিভিন্নভাবে তথ্য-প্রমাণ গায়েব করা হয়। যে কারণে ২০১৪ সালে আপিল বিভাগ বাধ্য হলো নিম্ন আদালতে রায় বহাল রাখতে।'

তিনি বলেন, “নতুন প্রজন্ম যেন এই বিশ্বাস নিয়ে বড় হতে পারে। মুক্তিযুদ্ধের শক্তিতে একটি সুন্দর, দুর্নীতিমুক্ত, অনিয়ম, অব্যবস্থাপনামুক্ত সমাজ চাই। যে স্বপ্ন নিয়ে আমাদের লাখ লাখ শহীদ তাদের জীবন দিয়েছে। আমরা যেন সেই সোনার বাংলা গঠন করতে পারি।”

জিয়াউর রহমান সামরিক ফরমান জারি করে এই বিচার নিষিদ্ধ করেছিলেন। তিনিও এই হত্যাকাণ্ডের পেছনের মানুষ কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সোহেল তাজ বলেন, “আমাদের সবকিছু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত করে বের করে নিয়ে আসা উচিত যে হত্যাকাণ্ডের পেছনে কারা ছিল, কীভাবে কী হয়েছে। আমি মনে করি সবার সবকিছু জানার অধিকার আছে। সম্পূর্ণ তদন্ত করে বের করতে হবে। সত্য কিন্তু তিতে হয়। সবকিছু তুলে আনতে হবে।”

কমিশন গঠনের বিষয়টি বিএনপি প্রহসন বলছে, এতে তারা বিচারকে বাধাগ্রস্ত করতে চাচ্ছে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমার মনে হয় তদন্ত কমিটি যেটা করা হবে, সেটি হতে হবে গ্রহণযোগ্য। এমন মানুষ দিয়ে তদন্ত করতে হবে, যিনি সর্বজনীনভাবে গ্রহণযোগ্য; এখানে যেন কোনও সন্দেহের অবকাশ না থাকে। এটা জাতির জন্য অতিগুরুত্বপূর্ণ।”

About

Popular Links