Tuesday, June 25, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

নিপুণের রিট নিয়ে যা বললেন সোহেল রানা-সুচন্দা

অভিনেত্রী সূচন্দা বলেন, ‘এসব নিয়ে কথা বলতেও খারাপ লাগে। আমরা যখন নিয়মিত কাজ করেছি, সে সময়ও সমিতি ছিল। এ রকম হয়নি’

আপডেট : ১৭ মে ২০২৪, ০৪:০৬ পিএম

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০২৪-২৬ মেয়াদের নির্বাচনের প্রায় এক মাস পর সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিপুণের হাইকোর্টে রিট করাকে কেন্দ্র করে আবারও উত্তপ্ত এফডিসি। নির্বাচনে সভাপতি মিশা সওদাগর এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ডিপজল নির্বাচিত হয়েছেন। ২০২৪-২৬ মেয়াদে তারা সমিতিকে নেতৃত্ব দেবেন।

নির্বাচন শেষ হওয়ার এক মাস পর নতুন করে আলোচনা তৈরি করছেন নিপুণ। নবনির্বাচিত কমিটির কার্যকারিতা স্থগিত চেয়ে রিট আবেদন করেছেন তিনি। বুধবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদনটি দায়ের করা হয়।

চলচ্চিত্রের জ্যেষ্ঠ শিল্পীরা বিষয়টিকে ভালোভাবে নিচ্ছেন না। নির্বাচন নিয়ে ঘুরেফিরে এমন পরিস্থিতি তৈরি করায় বিরক্ত তারা। এ প্রসঙ্গে অনলাইন সংবাদমাধ্যম বিডিনিউজের সঙ্গে কথা বলেছেন মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা। যিনি প্রযোজক, পরিচালক ও অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র ক্যারিয়ারের পাঁচ দশক পূর্ণ করেছেন।

সোহেল রানা বলেন, “চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির গত দুই বছরের নির্বাচন নিয়ে সারাদেশে আলোচনা হচ্ছে। এমন ঘটনা আগে কখনও হয়নি। এটা দিয়ে ৩০-৩৫ বছরের একটা সংগঠনের বিচার করা, বদনাম করা ঠিক না। পূর্ববর্তী সময়ে শিল্পী সমিতি কখনও কোর্ট-কাচারিতে যায়নি।”

তিনি বলেন, “আমাদের সময়ে যে কোনো গণ্ডগোল হয়নি তা কিন্তু না। গণ্ডগোল হয়েছে, সেটা আমরা নিজেরা নিজেরা সমাধান করেছি। সিনিয়র শিল্পীরা বসে সমাধান করেছি। সে সময় রাজ্জাক, আলমগীর, আমি, ফারুক আমরাও কিন্তু নেতৃত্ব দিয়েছি। এসব পরিস্থিতি আমরা কল্পনাও করিনি।”

আলোচনায় থাকতে নিপুণ এই কাজ করেছেন উল্লেখ করে গুণী এই অভিনেতা বলেন, “হতে পারে সে আলোচনায় থাকতে চায়। সবাই তো আলোচনায় থাকতে পছন্দ করে। সে হয়ত নেগেটিভভাবে আলোচনা ধরে রাখতে চায়। চলচ্চিত্র জগতে এখন দুই থেকে তিনজন ছাড়া আর কেউ কাজ করছে না। এখন তার কাজ না থাকলে সে হারিয়ে যাবে, এটা হয়ত মানতে চাচ্ছে না। তবে এটা বন্ধ হওয়া দরকার। কারণ সে শিক্ষিত একটা মেয়ে।”

এ বিষয়ে অভিনেত্রী সূচন্দা বলেন, “এসব নিয়ে কথা বলতেও খারাপ লাগে। শিল্পী সমিতি আমাদের সংস্কৃতির আঁতুড়ঘর। এখানে শিল্পীরা একসঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করবে। আমরা যখন নিয়মিত কাজ করেছি, সে সময়ও সমিতি ছিল। এ রকম হয়নি। এখন কেন এগুলো হচ্ছে? বিভেদ তৈরি হচ্ছে।”

About

Popular Links