Sunday, May 19, 2024

সেকশন

English
Dhaka Tribune

সন্তানদের নিয়ে রেস্টুরেন্টে খেতে যান নাজিয়া, লাশ হলেন তিনজনই

সন্তানদের নিয়ে ‘খানাস’ নামক একটি রেস্টুরেন্টে যান নাজিয়া। সেখানে গিয়ে বার্গার খেয়েছেন তিনজন। কিন্তু বের হয়ে আসতে পারেননি

আপডেট : ০১ মার্চ ২০২৪, ১০:৪৮ এএম

দুই সন্তান আয়ান (৮) ও আয়াতকে (৬) নিয়ে স্বামীর সঙ্গে বেইলি রোড এলাকায় থাকতেন নাজিয়া আক্তার (৩১)। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দুই সন্তান রেস্টুরেন্টে খেতে যাওয়ার জন্য বায়না ধরে। বিষয়টি তিনি তার স্বামী মো. আশিককে ফোন করে জানান। আশিক ছিলেন তখন অফিসে, বনানীতে। ছেলেদের নিয়ে বাসার পাশের কোনো রেস্টুরেন্ট যেতে বলেন আশিক।

নাজিয়া দুই ছেলেকে নিয়ে যান “খানাস” নামক একটি রেস্টুরেন্টে। সেখানে গিয়ে বার্গার খেয়েছেন তিনজন। কিন্তু খাওয়া শেষে রেস্টুরেন্ট থেকে আর বের হয়ে আসতে পারেননি। বেইলি রোডের ভয়াবহ আগুনে মারা গেছেন তিনজনই।

শিশু আয়ানের মরদেহ উদ্ধার করা হয় ভবনের তৃতীয় তলার সিঁড়ি থেকে। আগুনে নাজিয়া-আয়তও মারা যায়। ঢাকা মেডিকেলের মর্গে তাদের মরদেহ রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে আহাজারি করছিলেন নাজিয়ার পরিবারের সবাই। দুই সন্তান ও স্ত্রী নাজিয়াকে হারিয়ে বাকরুদ্ধ স্বামী আশিক।

রিফাত নামে নাজিয়ার এক স্বজন জানান, আশিক আর নাজিয়া বেইলি রোডের বেইলি রিচ অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন। আশিকের জন্ম ও বেড়ে ওঠাও বেইলি রোড এলাকায়। নাজিয়া বাসার পাশেই রেস্টুরেন্টে দুই ছেলেকে নিয়ে খেতে গিয়েছিলেন। আগুন লাগার পর নাজিয়া স্বামীর সঙ্গে ফোনে কথাও বলেন। এক পর্যায়ে ছোট ছেলে আয়ানকে হারিয়ে ফেলেন। পরে সবাই দগ্ধ হয়ে মারা যান।

রিফাত আরও জানান, ঘটনার সময় ওই ভবনের সামনে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিচ্ছিলেন তিনি। হঠাৎ ভবনটির নিচতলায় বিস্ফোরণের বিকট শব্দ শুনতে পান। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ওপরের দিকে ছড়িয়ে পড়ে।

এর আগে, বৃহস্পতিবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে রাজধানীর বেইলি রোডে অবস্থিত একটি বহুতল ভবনে আগুন লাগার সংবাদ পায় ফায়ার সার্ভিস। এতে এখন পর্যন্ত অন্তত ৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। গুরুতর আহত হয়েছেন আরও অন্তত ২২ জন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

টাইমলাইন: বেইলি রোডে আগুন
০১ মার্চ ২০২৪, ১০:৩৭
সন্তানদের নিয়ে রেস্টুরেন্টে খেতে যান নাজিয়া, লাশ হলেন তিনজনই

About

Popular Links